সর্বশেষ

  গ্রিক দেবীর ভাস্কর্য সরানোর কাজ চলছে   প্রধানমন্ত্রী ও প্রশাসনের কাছে জগন্নাথপুরে স্কুলছাত্র শুকুর হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি   ‘যুদ্ধ বিধ্বস্ত পৃথিবীতে নজরুল সাম্যের কথা বলে গেছেন’   সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের নতুন সদস্যদের অভিষেক আজ   মাহে রমজান উপলক্ষে জগন্নাথপুরে প্রবাসীদের উদ্যোগে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ   জগন্নাথপুরে অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেফতার   বিয়ানীবাজারে সড়ক সংস্কারের দাবিতে গ্রামবাসীর অবরোধ   শাহী ঈদগাহ থেকে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার   রামপুরে বাগান কর্তৃপক্ষের সাথে শ্রমিকদের বিরোধ নিষ্পত্তি করলেন উপজেলা চেয়ারম্যান   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে বিভিন্ন সংস্থার উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ ও ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প   জৈন্তাপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্রকে সিলেটে হস্তান্তর না করতে প্রতিমন্ত্রীকে স্মারকলিপি   নবীগঞ্জের ২নং ইউনিয়নে শেখ হাসিনা’র শতভাগ বিদ্যুৎ উপহার দিলেন কেয়া চৌধুরী   আজ ওসমানীনগরের বুরুঙ্গা গণহত্যা দিবস   শেখ হাসিনার নেতৃত্বে হবিগঞ্জের সর্বত্র ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে : এমপি আবু জাহির   সুনামগঞ্জে হামের প্রাদুর্ভাব : আতঙ্কে অভিভাবকরা   অনিল কিষণ সিংহের ৮০তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন শুক্রবার   হবিগঞ্জে ক্ষুদে নৃত্য শিল্পীর সংবর্ধনা   সাংবাদিক মামুন চৌধুরী’র পিতা ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত   কৃষকদের ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন   সনামগঞ্জ জেলা কৃষক লীগের আহবায়ক কমিটি গঠন

কুলাউড়ায় কে হচ্ছেন নৌকার কান্ডারী?

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২৪ ১৮:৩১:৩০

কুলাউড়া প্রতিনিধি : মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৫ ॥ শুধু মেয়র পদেই রাজনৈতিক দলের প্রতীক বরাদ্দ করা হবে এবং কাউন্সিলরসহ অন্য পদে আগের মতোই নির্দলীয়ভাবে নির্বাচন হবে- এই বিধান রেখে বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে ‘স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) (সংশোধনী) বিল-২০১৫’। পাস হওয়া বিল অনুযায়ী মেয়র ছাড়া কাউন্সিলরসহ অন্য প্রার্থীদের আগের মতোই নির্বাচন কমিশন থেকে প্রতীক বরাদ্দ নিতে হবে।

আসন্ন পৌর নির্বাচনের মাঠে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীদের কার্যক্রম দৃশ্যমান। মৌলভীবাজার জেলায় রাজনীতি সচেতন উপজেলা হিসেবে পরিচিত কুলাউড়া। আসন্ন কুলাউড়া পৌরসভা নির্বাচনে কে পাচ্ছেন নৌকা প্রতীক? এমন প্রশ্ন, জল্পনা, আলাপ, আলোচনা এখন সর্বত্র। শুধু আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীই নন এমন সরব আলোচনা পৌরসভার আপামর জনতার। যত দিন যাচ্ছে এ নিয়ে কৌতুহলের মাত্রা যেন বেড়ই চলছে। এই কৌতুহলী আলাপ আলোচনা পৌরসভার গন্ডি পেরিয়ে কুলাউড়া উপজেলার সর্বত্র, এমনকি পার্শ্ববর্তী উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে তা বিস্তৃত। শহর থেকে গ্রামে, হোটেল রেস্তরায়, পাড়া মহল্লা সর্বত্র এখন একটাই আলোচনা কে পাচ্ছেন নৌকা প্রতীক? প্রতিদ্বদ্বী প্রার্থীদের আমলনামা, যোগ্যতার চুলচেড়া বিশ্লেষন ছাড়াও কে পারিবারিকভাবে আওয়ামীলীগ, কে অন্য দল থেকে আগত, পৌরসভার স্থায়ী বাসিন্দা কি না, গত নির্বাচনে কে কত ভোট পেয়েছিলেন, কার শিক্ষাগত যোগ্যতা কত, পৌরবাসীর কাছে কার গ্রহনযোগ্যতা কতটুকু ইত্যাদি নানা বিষয় এসব আলোচনায় স্থান পাচ্ছে। তবে আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীর জোড়ালো দাবী বিগত নির্বাচনে পরপর ২ বার পরাজিত এই আসন পুনরুদ্ধার করা যায় এমন একজন যোগ্য প্রার্থীকে যাতে মনোনয়ন দেয়া হয়। ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত বি গ্রেডের পৌরসভার আসন্ন এই নির্বাচনে বিএনপির একজন প্রার্থী (বর্তমান মেয়র) হওয়ায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দাবী পৌরবাসীর চাহিদার দিকে লক্ষ্য রেখে যাতে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন  প্রদান করা হয়। অনেকেই মনে করেন আওয়ামী লীগের একাধিক ও বিএনপির একক প্রার্থী হওয়ায় আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক কে পাচ্ছেন তার উপর নির্ভর করছে কুলাউড়া পৌরসভার আগামীদিনের পৌরপিতা নির্বাচিত হবার ভবিষ্যত। 

সারাদেশের সকল পৌরসভায় আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে বিচরণ করলেও এসব প্রার্থীদের মধ্য থেকে আওয়ামীলীগ কোন প্রক্রিয়ায় একক প্রার্থী নির্বাচন করবে তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে আওয়ামী লীগের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে কোন প্রক্রিয়ায় প্রার্থী নির্বাচন করা হবে তা নিয়ে কাজ চলছে। সূত্র আরো জানায় দুটি প্রক্রিয়া চুড়ান্ত করা হয়েছে। সেক্ষেত্রে একটি প্রক্রিয়া হচ্ছে আওয়ামী লীগের সংশ্লিষ্ট পৌর কমিটি অথবা আওয়ামী লীগের পৌর ও থানা কমিটি প্রার্থী মনোনীত করবে। অপর প্রক্রিয়া হচ্ছে একটি বিভাগীয় সেল হবে, সেই সেলের প্রধান হবেন আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য। উক্ত সেলে বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, জেলা আওয়ামী লীগ, উপজেলা আওয়ামী লীগ, পৌর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা সদস্য থাকবেন। আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় এর যেকোন একটি প্রক্রিয়া চুড়ান্ত হবে। এবং সেই প্রক্রিয়ায় প্রার্থী মনোনীত হবেন। তবে যে প্রক্রিয়ায়ই প্রার্থী মনোনীত হউক না কেন এই তালিকা কেন্দ্রে যাবে। সেখানে বিভিন্ন সংস্থা থেকে প্রাপ্ত তালিকার সাথে এই তালিকা মিলিয়ে যাচাই করে চুড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবে আওয়ামী লীগ।

মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন মৌলভীবাজার জেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, কুলাউড়া উপজেলা শ্রমিকলীগের যুগ্ম আহবায়ক, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা ও মানবাধিকার কমিশনের উপজেলার সাধারণ সম্পাদক, সাপ্তাহিক কুলাউড়ার সংলাপের প্রকাশক ও সম্পাদক এবং কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের সিনিয়ির প্রভাষক সিপার উদ্দিন আহমদ। কাদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কুলাউড়ার ডাক পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক একেএম সফি আহমদ সলমান। কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও উপজেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ শফিউল আলম শফি। উপজেলা আওয়ামীগের সদস্য ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব শফি আলম ইউনুস (মহালদার)।

আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মধ্যে প্রভাষক সিপার উদ্দিন আহমদ পারিবারিকভাবে আওয়ামী রাজণীতির সাথে সম্পৃক্ত। পিতা হাজী আব্দুল বারী ছমরু মিয়া কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও কুলাউড়া পৌর আওয়ামী লীগের ৮ নং ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি। ছোট বোন কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের প্রথম মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তানিয়া আক্তার লিমা ছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদক। ছোট ভাই শাহীন আহমদ কুলাউড়া উপজেলা যুুবলীগের প্রচার সম্পাদক ও পৌর যুবলীগের আহবায়ক। কুলাউড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক প্রভাষক সিপার উদ্দিন আহমদ আওয়ামী ঘরনায় রাজনৈতিক যাত্রা শুরু শেখ রাসেল শিশু কিশোর সংগঠনের কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে। শফিউল আলম শফি দীর্ঘ এক যুগেরও বেশী কুলাউড়া উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। গত পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে তিনি নির্বাচন করে পরাজিত হন। সফি আহমদ সলমান জাসদ থেকে আওয়ামী লীগে যোগদান করে উপজেলা আওয়ামী লীগের গত কাউন্সিলে যুগ্ম সম্পাদকের দায়িত্ব পান। তিনি কাদিপুর ইউনিয়নের ৩ বারের নির্বাচিত ইউনিয়ন চেয়ারম্যান। কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শফি আলম ইউনুস গত পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে তিনিও নির্বাচনে পরাজিত হন।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/একে/এমওআর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত