সর্বশেষ

  ছাতকে পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ আটক ১   শ্রীমঙ্গল বিজিবি’র বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উদ্বোধন   মুক্তিযোদ্ধারা হচ্ছেন জাতির সূর্যসন্তান : শফিক চৌধুরী   বিয়ানীবাজার পৌর মেয়রের বাজেটে বড় চমক : সাড়ে ৪৬ কোটি টাকার বাজেটে উন্নয়ন ব্যয় ৯১ শতাংশের বেশি   দিরাইয়ে যুব নারীদের হস্তশিল্প প্রশিক্ষণ কোর্স সম্পন্ন   ডিএনএ রিপোর্টে সত্যতা মেলেনি : আতিয়া মহলে নিহতদের মধ্যে নেই জঙ্গি মুসা   বাহুবলে অবৈধ স্পিরিট বিক্রি করায় দুই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা   ছাতকে ১৬টি বিষধর সাপ আটক   সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে হাইওয়ে পুলিশের অসহনীয় চাঁদাবাজী   যাকাতের অর্থ আয়বর্ধক কাজে ব্যয় করতে হবে: রাহাত আনোয়ার   বজ্রপাতের কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড় ধস   কমলগঞ্জে সংসদ সদস্য’র ঐচ্ছিক তহবিলের টাকা বিতরণ   এপেক্সিয়ান চন্দন দাসের মায়ের মৃত্যুতে সাবেক মেয়র কামরানের শোক   মওদুদের জন্য খাট পাঠাতে চান নাসিম   মসজিদ আল হারামে শবে কদরের রাতে ২০ লাখের বেশি মানুষ মোনাজাতে শরীক   পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের শুভেচ্ছা   জ্যেষ্ঠ সাংসদদের পাশে পাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী   গাজীপুরে ট্রাকের ধাক্কায় ১ জনের মৃত্যু   গ্রামীনফোন’র ঈদ আয়োজনে আয়নাবাজি : ৪টি চ্যানেল, ২০টি নাটক   বৃষ্টির দিনে যেমন পোশাক

বিয়ানীবাজারের শেওলা সেতু এলাকায় সারা বছরই প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে পাখি

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২৪ ০০:৫১:২৫

রাজু ওয়াহিদ, বিয়ানীবাজার : মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৫ ॥ শনিবার সন্ধ্যা। শেওলা সেতুর টোল এলাকায় কালো রঙের একটি মাইক্রোবাস থামতেই ঘিরে ধরে তিন যুবক। সবার হাতে ঝুলানো পাখি। দেশীয় এবং অতিথি (হাঁস জাতীয়) দুই ধরণের পাখিই রয়েছে। ক্রেতার সাথে আলাপের ধরন বুঝা গেলো ওদের পরিচিত খদ্দের।

তিন যুবকের একজন এক হালি হাঁসের (অতিথি পাখি) দাম চাইলো ২ হাজার ৫ শত টাকা। একই ক্রেতার কাছে অন্য দু’জন দুই হালি দেশীয় পাখি ওটা ও ওখা (স্থানীয় নাম) দেখায়। ক্রেতার পছন্দ হলে তারা দাম চায় যথাক্রমে ১ হাজার ৫শ’ ও ১ হাজার ৮ শত টাকা।

এক পর্যায়ে  দুই হালি ওটা ও ওখা ২ হাজার টাকায় এবং এক হালি অতিথি পাখি ১ হাজার ৯শত টাকায় ওই ক্রেতা কিনে নেন।

শুধু গত শনিবার সন্ধ্যা নয়, প্রায় সারা বছরই শেওলা সেতুর টোল এলাকায় শোনা যায় “পাখি নেইন স্যার। এক হালি দেই। ইতা পাখির স্বাদ ভালা। খালি মাংস পাইবা” ইত্যাদি আহবান আর দেশি অতিথি পাখি কেনা বেচার দৃশ্য দেখা যায়। বক, ঘুঘু, বুলবুলি ইত্যাদি দেশীয় পাখি বিক্রি হয় বছরের প্রায় সব দিন। শীত মৌসুম আসলেই তালিকায় যোগ হয় অতিথি পরিযায়ী পাখি। সব ধরনের পাখি শিকার ও বিক্রি দণ্ডনীয় অপরাধ হলেও প্রশাসনের নিরবতার সুযোগে শেওলা সেতুর টোল এলাকায় প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে অতিথি পাখিসহ দেশীয় নানা প্রজাতির বিলুপ্ত পাখি। সাধারণত সেতু সংলগ্ন এলাকার লোকেরাই এগুলোর সাথে জড়িত।

বিভিন্ন সময়ে সিলেট-বিয়ানীবাজার অভ্যন্তরীণ মহাসড়কের শেওলা সেতুর টোল এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে গাড়ি থামার সাথে পাখি বিক্রেতারা গাড়ির জানালার কাছে পাখি উচিয়ে ধরে। নানা ধরণের কথা বলে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করে। সেই সাথে চলে দর দাম।

পরিচয় গোপন করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আলাপ হয় তিন যুবকের একজনের সাথে। সে জানায়- তারা নিজেরা পাখি শিকার করে এবং শিকারিদের কাছ থেকে পাখি কিনে নেয়। মুড়িয়া হাওর এলাকা থেকে দেশীয় প্রজাতির পাখি, শালিক, সাদা বক, কানা বক (লাল বক), ওটা, ওখা, ডুপি (ঘুঘু) এবং মুড়িয়া ও হাকালুকি হাওর থেকে অতিথি পাখি ফাঁদ পেতে ধরা হয়। সে শিকারিদের নাম বলতে রাজি হয়নি। তার আরেক ভাইও পাখি বিক্রির সাথে জড়িত।

অন্যান্য ভাসমান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের সাথে এই দুই সহোদরসহ অন্যজন দীর্ঘদিন থেকে পাখি বিক্রি করছে। পাখি বিক্রি করা তাদের পেশা। ক্রেতা হিসাবে তাদের পছন্দ মাইক্রোবাস, অটোরিকশা যাত্রীদের। মাইক্রোবাস-অটোরিকশা থামার সাথে তারা বিভিন্ন প্রজাতির পাখি নিয়ে ঘিরে ধরে ক্রেতাদের সামনে পাখি মেলে ধরে। একেক জাতের পাখির একেক দাম।

এ বিষয়ে বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মু. আসাদুজ্জামান বলেন- এদের ধরার জন্য কয়েকবার চেষ্টা করেছি। কিন্তু অভিযানে আগেই টের পেয়ে যায়। শীঘ্রই ভিন্ন কৌশলে তাদের আটক করা হবে।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/আওডাব্লিউ/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত