সর্বশেষ

  একটি শিশুকে ঘিরে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ও উৎসুক জনতা   বাবুল আখতার স্মরণে আরামবাগ ব্লক আওয়ামী লীগের দোয়া মাহফিল   ‘অভিযাত্রী’ শায়েস্তাগঞ্জ শাখার আত্মপ্রকাশে শিশু-কিশোরদের মাঝে শিক্ষাউপকরণ বিতরণ   প্রবাসীরা অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন   মলাটের যাত্রা শুরু   আজ সুনামগঞ্জে দু’দিনের সফরে আসছেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নান   শিক্ষকদের ন্যায্য দাবি আওয়ামী লীগ সরকার পূরণ করবে : কামরান   ছাতক পৌরসভায় ২৬ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে   দীর্ঘ ১৫ বছর পর আসছে ওসমানীনগর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি   মেয়াদ পূর্ণ করে বিদায়, উপাচার্যবিহীন শাবি   ‘সরকারের পাশাপাশি, বিত্তশালী ও প্রবাসীরা বন্যার্তদের পাশে দাড়িয়ে মহত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন’   দক্ষিণ সুরমায় ছাত্রলীগ নেতা ‘ফাহিম স্মৃতি পরিষদ’র অনুষ্ঠানে গোলাগুলি: আহত ২   সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড জনসম্মুখে তুলে ধরতে হবে: আশফাক আহমদ   সরকার হাওর-দুর্যোগ মোকাবেলা ও কৃষকের স্বপ্ন বাস্তবায়নে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ : ড. জয়া সেনগুপ্তা   সিলেট জেলা শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে অসুস্থ শফিউলকে অনুদান প্রদান   ফেঞ্চুগঞ্জে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুর্নবাসনে মানিকোনা উন্নয়ন সংস্থা ইউকে’র অনুদান প্রদান   চুনারুঘাটে সাপের কামড়ে যুবতীর মৃত্যু   বালাগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি গঠন   মাধবপুরে জাপার উপজেলা ও পৌর কমিটি অনুমোদন   সিলেটে ‘দ্যা সামিট অফ মেলোডি’ কনসার্টে মঞ্চ মাতালো অরফিয়াস ও ব্যান্ড 'লালন'

ভাটির সাড়ে ৪ হাজার ইরি-বোরো চাষীদের কপাল পুড়বে

দোয়ারাবাজারে চিলাই নদীর উজানে ফের বাঁধ দেয়ার প্রস্তুতি

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২৩ ১৩:০১:২৬

আপডেট : ২০১৫-১১-২৩ ১৪:৪৯:৪২

মুহাম্মদ হাবীবুল্লাহ হেলালী, দোয়ারাবাজার : সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৫ ॥ সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার চিলাই নদীর উজানে ফের মাটির বাঁধ দিয়ে পানি আটকানোর  প্রস্তুতি চলছে। ইতিমধ্যে নদীতে ড্রেজার মেশিন দিয়ে পানি নিষ্কাশন করে বাঁধের সব প্রস্তুতি সম্পন্নও হয়েছে। আর এবারও পাহাড়ী ওই নদীর উজানে অবৈধ বাঁধ দিয়ে পানি আটকানো হলে ভাটি এলাকার চাষীদের কপাল পুড়বে।

প্রায় সাড়ে ৪ হাজার একর ইরি-বোরো চাষাবাদ ব্যাহত হবে। পানি না পেয়ে চলমান বোরো আবাদ সম্পূর্ণভাবে বাধাগ্রস্ত হবে। প্রতিকার চেয়ে ও সব অঞ্চলের কৃষকদের মধ্যে সুষম পানি বণ্টনের দাবিতে সম্প্রতি চিলাই নদী উত্তর বালিছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লিমিটেডের ব্যানারে সম্ভাব্য ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা প্রধানমন্ত্রীর নিকট আবেদন করেছেন।

কৃষকদের অভিযোগ- উপজেলার বোগলাবাজার, বাংলাবাজার ও সদর ৩ ইউনিয়নের ভাটির সহস্রাধিক কৃষক শুকনো মৌসুমে পাইকপাড়া-ইদুকোনা হয়ে প্রবাহিত চিলাই নদীর উত্তর বালিছড়া অংশে মাটির বাঁধ দিয়ে পানি আটকিয়ে প্রতি বছর প্রায় ১ লক্ষ টন ধান উৎপাদন করে আসছে। এছাড়া ভাটির হাজার হাজার কৃষকরা ইরি-বোরে চাষাবাদসহ প্রায় ২শ’ পুকুরে মাছ চাষ ও শীতকালীন সবজি চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। ওই এলাকার কৃষকরা শুকনো মৌসুমে ইরি-বোরে চাষাবাদ করে স্থানীয় খাদ্য ঘাটতি পূরণ করে জাতীয়ভাবে খাদ্য ঘাটতি পূরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন। কিন্তু একটি স্বার্থান্বেষী মহল গত বছর ওই নদীর উজানে অবৈধ মাটির বাঁধ দিয়ে পানি আটকানোর ফলে ভাটির কয়েক হাজার কৃষক পানির অভাবে চাষাবাদ করতে না পেরে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এবারও শুষ্ক মৌসুমের শুরুতে সরকারি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নদীর উজানে চিহ্নিত একটি প্রভাবশালী স্বার্থান্বেষী মহল ক্যাম্পেরঘাট এলাকায় অপরিকল্পিতভাবে অবৈধ মাটির বাঁধ নির্মাণ করছে। আর নদীর উজানে এভাবে অপরিকল্পিত মাটির বাঁধ হলে প্রায় ১০ হাজার টন ধান উৎপাদন ব্যাহত হয়ে ভাটি অঞ্চলের কৃষকদের কয়েক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হবে।

ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্প এলজিইডি সুনামগঞ্জ ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মতামত অনুযায়ী, চিলাই নদীর উজানে অপরিকল্পিত বাঁধ নির্মাণের কারণে ভাটি অঞ্চল কালক্রমে মরুভূমিতে পরিণত হবে।

স্থানীয় বালিছড়া গ্রামের প্রভাতি সমবায় সমিতির সভাপতি কৃষক আব্দুল ওয়াদুদ জানান- “নদীর উজানে বাঁধ দেয়ার কারণে ভাটির কৃষকরা গত বছরের ক্ষতির ভয়ে এবছর বীজতলা প্রস্তুত করছে না। প্রশাসনের হস্তক্ষেপে অবিলম্বে উজানের বাঁধ দেয়া বন্ধ না করলে এবারও চরম ক্ষতির সম্মুখিন হবেন নিচু এলাকার কৃষকরা।”

চিলাই নদী উত্তর বালিছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আকন্দ জানান- “কৃষকদের সমস্যা সমাধান ও উজানের মাটির বাঁধ অপসারণ করতে ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ প্রধানমন্ত্রীর নিকট আবেদন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে দ্রুত উদ্যোগ না নিলে কৃষকরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়বে।”
 
বোগলাবাজার ইউনিয়নের সোনাছড়া গ্রামের কৃষক ডা. হাফিজ উদ্দিন জানান- “ভাটি এলাকার উত্তর বালিছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লিমিটেডের ইরি-বোরে স্কিম অনুযায়ী বালিছড়া অংশে বাঁধ দিয়ে পানি আটকানো প্রয়োজন। যেখানে ভাটি এলাকার কৃষক, ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক বর্গাচাষীদের সুবিধার্থে সরকার ইতোমধ্যে রাবারড্যাম প্রকল্প স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। এখানে জাইকা কর্তৃক একটি পাকা অবকাঠামো নির্মাণের প্রস্তাবও করা হয়েছে। আর পরিকল্পিত বাঁধ নির্মাণ করলেই নিচু এলাকায় প্রচুর চাষাবাদ, পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষা হবে। উজান ও ভাটির কৃষকরা সমানভাবে পানি পাবে।

চিলাই নদীর উজানে স্বার্থান্বেষী মহলের অবৈধ মাটির বাঁধ দেয়া প্রসঙ্গে জানতে চাইলে দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেছেন- নদীর উজানে বাঁধ দেয়ার বিষয়টি খতিয়ে দেখে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে কারো স্বার্থের জন্য কৃষকদের ক্ষতি হোক সেটা সহ্য করা হবেনা বলেও জানান তিনি। 

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/এমএইচএইচ/এসবি

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত