সর্বশেষ

  ঢাবির রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট নির্বাচন: আ.লীগপন্থী ২৪, বিএনপিপন্থীরা ১টিতে জয়ী   প্রধানমন্ত্রীর সিলেট আগমন উপলক্ষ্যে মহানগর শ্রমিকলীগের সভা   অর্থমন্ত্রীর জীবনী ডকুমেন্টারিতে সুযোগ পেল মুক্তাক্ষরের শিক্ষার্থীরা   জাগো সিলেট আন্দোলনের আলোচনা সভা   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে দি হাঙ্গার প্রজেক্টেরে আলোচনা সভা   দক্ষিণ সুরমায় ২য় দিনের মত সিএইচসিপিদের কর্মবিরতি পালন   আম্বরখানার মণিপুরি পাড়া মাতালেন নকুল কুমার   চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠের যৌথ চ্যাম্পিয়ন সুনামগঞ্জের হাওর কন্যা ঐশি   নগরীর সোবহানীঘাটে আবাসিক হোটেল থেকে তরুণ-তরুণীর লাশ উদ্ধার   এতিমদের সাথে রোটারী মিডটাউনের মধ্যাহ্নভোজ   রোটারী ক্লাব অব বিয়ানীবাজারের শীতবস্ত্র বিতরণ   স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র গ্রহণ করলেন অর্থমন্ত্রী   জামালগঞ্জে কমিউনিটি ক্লিনিকের কর্মরতদের অবস্থান কর্মসূচি   বিয়ানীবাজারে অগ্নিকাণ্ডে আড়াই লাখ টাকার ক্ষতি   ছুটির দিনে রান্নাঘরে প্রধানমন্ত্রী   রাজনগরে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত   সিলেটে ‘আত্মা’র আঞ্চলিক সভা অনুষ্ঠিত   চলে গেল প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পুরষ্কার গ্রহণকারী বর্ণা : জকিগঞ্জে শোকের ছায়া   এলাকার উন্নয়নে স্থানীয়দের নির্বাচিত করুণ, মাগুড়ার কাউকে নয় : এহিয়া চৌধুরী   সালমান শাহ’র হত্যাকারীদের বিচারে দাবিতে সিলেটে মানববন্ধন

বাইক্কাবিলের পাখিপ্রেমী মিরাশ মিয়া আর নেই

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-১৭ ১২:৪৬:৫৭

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৫ ॥ বাইক্কাবিলের পাখিপ্রেমী মিরাশ মিয়া আর নেই (ইন্না...রাজিউন)। ১৭ নভেম্বর (মঙ্গলবার) সকাল সাড়ে ১০টায় পাখিদের বন্ধু, রক্ষক মিরাশের দাফন হাজিপুর গ্রামের পৈত্রিক বাড়িতে সম্পন্ন হয়।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৬টায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৭ বছর। তা‍ঁর মৃত্যুর খবরে পাখি পর্যবেক্ষক, আলোকচিত্রী ও গবেষকদের মাঝে গভীর শোক নেমে আসে।

ক্লাইমেট-রেজিলিয়েন্ট ইকোসিস্টেমস্ অ্যান্ড লাইভলিহুডস্ (ক্রেল) প্রকল্পের বাইক্কাবিল সাইট অফিসার মো. মনিরুজ্জামান বলেন- হাওরের প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণে এবং ব্যবস্থাপনায় মিরাশ মিয়ার কর্মদক্ষতা অতুলনীয়। গ্রামের মানুষ হয়েও জীববৈচিত্র্য রক্ষণাবেক্ষণে তার ভূমিকা অনস্বীকার্য।
 
তিনি আরও বলেন- মিরাশ মিয়া পরিযায়ী পাখিদের ইংরেজি ও বাংলা নাম জানতেন। শুধু তা-ই নয়, চিনতেন কোনটা কোন পাখি। বাইক্কাবিলের পাখি পর্যবেক্ষণ টাওয়ারে টেলিস্কোপ দিয়ে আগত পর্যটকদের পাখির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতেন তিনি।

বাইক্কা বিলে কোন পাখি কখন ‍আসে, কখন যায়, কোনে পাখিটি এবার নতুন এলো- এসব তথ্য সবার আগে মিলতো মিরাশ মিয়ার কাছে। কনকনে শীত উপেক্ষা করে পাখিরক্ষায় বিলের পর্যবেক্ষণ টাওয়ারেই রাতযাপন করতেন তিনি।
 
মৃত্যুকালে স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে ছাড়াও তিনি বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন পরোপকারী, বিনয়ী ও প্রকৃতিপ্রেমী।

বড়গাঙ্গিনা সম্পদ ব্যবস্থাপনা সংগঠনের (আরএমও) প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারি ছিলেন মিরাশ মিয়া। 

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/এসবি
 

সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত