সর্বশেষ

  হাওরবাসীর দুর্যোগ নিয়ে তামাশা করবেন না   “আমি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, আমার কোন চাওয়া পাওয়া নেই”   গোলাপগঞ্জে বিদ্যুতায়িত হয়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু   রশিদিয়া দাখিল মাদরাসায় বিশ্ব বই দিবস উদযাপন   এনইইউবিতে ‘ক্যারিয়ার ক্লাব’র যাত্রা শুরু   ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নের বাজেট ঘোষণা   জামালগঞ্জে এক কিশোরীর দুই জন্ম নিবন্ধন: বাল্যবিবাহ সম্পন্ন, এলাকায় তোলপাড়   বিশ্বনাথে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে র‌্যালী   কাউন্সিলর আফতাবকে ৭নং ওয়ার্ড যুবলীগের সংর্বধনা   সব চেষ্টা ব্যর্থ, তলিয়ে গেল শনি: হাওরপাড়ে চলছে কৃষকের আহাজারি   হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার পাবে মাসে ৩০ কেজি চাল ও নগদ অর্থ   মহাজনী ও এনজিও ঋনের চাপ: সব হারিয়ে দিশেহারা হাওরবাসী   বাবাকে ছাপিয়ে যেতে চান টাইগার শ্রফ   বাজারে আসুসের তিন জেনফোন   সুনামগঞ্জে শনির হাওরের বাঁধে ৩টি স্থানে ভাঙন   মহামতি লেনিনের জন্মবার্ষিকীতে সিলেটে লাল পতাকা মিছিল   ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে   লাখাইয়ে দেশীয় অস্ত্রসহ ৩ ডাকাত গ্রেফতার   আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন তারেকের শাশুড়ি সিলেটের সৈয়দা ইকবাল মান্দ বানু   শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি হয়েছে : সিলেটে খাদ্যমন্ত্রী

শেষ বলে রংপুরের নাটকীয় জয়

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২২ ২১:৫২:২২

ক্রীড়া ডেস্ক : রোববার, ২২ নভেম্বর ২০১৫ ॥ প্রথম ম্যাচেই জমে উঠল বিপিএল। রংপুর রাইডার্স বনাম চিটাগং ভাইকিংসের ম্যাচটা নির্ধারিত হয়েছে একেবারে শেষ বলে। মাত্র এক রান করেই সতীর্থদের আলিঙ্গনের ভিড়ে হারিয়ে গেলেন সাকলায়েন সজীব। এই একটা রানই যে শেষ বলে ২ উইকেট বাকি থাকতে জয় এনে দিয়েছে রংপুরকে। ডাগ আউট থেকে সবাই মিলে ছুটে গেলেন। গাঢ় নীল জার্সির ছোটখাটো উৎসবই যেন হয়ে গেল মাঠের মধ্যে।

ম্যাচটা চট্টগ্রামের মুখের গ্রাস থেকে বের করে এনেছে রংপুর। শেষ ছয় ওভারেও ম্যাচের পাল্লা ভালোমতোই হেলে ছিল চট্টগ্রামের দিকেই। ৩৬ বলে দরকার ৯১ রান। ওভারে ১৫-এর বেশি করে রান তোলার কঠিন সমীকরণটাই মিলিয়ে দিল রংপুর। তাতে প্রধান ভূমিকা রাখলেন মিসবাহ-উল হক। ‘টুকটুক’ নামের অপবাদ ঘুচিয়ে দেবেন এই প্রতিশ্রুতি ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই রাখলেন মিসবাহ। ৩৯ বলে চারটি ছক্কা ও তিন চারে করলেন ৬১।

তবে বড় ভূমিকা রেখেছেন আল-আমিন, থিসারা পেরেরা, এমনকি মাত্র ১৮ রান করা ড্যারেন স্যামিও। এই তিনজনের ইনিংস তিনটা না হলে মিসবাহর চেষ্টাই যে বৃথা যেত। ২৮ বলে ৩৮ করেছেন আল-আমিন, ১৭ বলে ৪৩ এসেছে পেরেরার ব্যাটে, মাত্র ৭ বলে ১৮ করেছেন স্যামি। শেষ ৬ ওভারে ঠিক ৯১ রানই তুলেছে রংপুর।

প্রথম দুই ওভারে মাত্র ৫ রান দিয়ে দুই উইকেট নেওয়া মোহাম্মদ আমির চেষ্টা করেছিলেন বটে। কিন্তু ইনিংসের ১৫তম ওভারে নিজের তৃতীয় ওভারটি করতে এসে হজম করলেন ১৭ রান। সেখান থেকেই রংপুরের ঘুরে দাঁড়ানোর শুরু। পাঁচ বছর পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আবহে ফিরে আমির শেষ ওভারে আরও দুটো উইকেট নিলেও দলের পরাজয় ঠেকাতে পারেননি।

আমিরের ১৯তম ওভারটি আবারও ম্যাচে ফিরিয়ে এনেছিল চট্টগ্রামকে। রংপুরের দুই সর্বোচ্চ স্কোরার পেরেরা-মিসবাহ দুজনেই পর পর দুই বলে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। ভেঙেছিল তাদের ৩৫ বলে ৮০ রানের জুটিটাও। শেষ ওভারে দরকার ছিল ১৪। উইকেটে এসেই তলোয়ারের মতো ব্যাট চালাতে শুরু করেন স্যামি। শফিউলের করা ওই ওভারের প্রথম বলটা ডট গেলেও পরের তিন বলে নেন ১২ রান। ২ বলে ২ দরকার এমন সময় স্যামির রান আউট আরও নাটক জমিয়ে তোলে। সজীব সোজা ব্যাটে খেলে এক রান নিয়েই তাই হয়ে যান সতীর্থদের নায়ক!

ব্যাটে বলে দিনটা একদমই খারাপ গেছে দীর্ঘ ভ্রমণ শেষে গতকালই বাংলাদেশে আসা সাকিব আল হাসানের। তবে অধিনায়ক হিসেবে নিশ্চয়ই তৃপ্ত তিনি। তামিম যেমন ৫১ রান করেও তাই পরাজিতের দলেই। ম্যাচ সেরা হয়েছেন মিসবাহ।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত