সর্বশেষ

  বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ওয়ান ডে সিরিজ শুরু   যাদুকাটা নদীর তীরে পণতীর্থ বারুণী স্নান আজ   ধন্যবাদ ১৭ পদাতিক ডিভিশনকে : আতিয়া মহলের বাসিন্দারা উদ্ধার   সিলেটের জঙ্গি আস্তানায় অপারেশন ‘স্প্রিং রেইন’ চলছে   সিলেটে জঙ্গি আস্তানায় প্যারা-কমান্ডোর অভিযান শুরু   সিলেটে জঙ্গি আস্তানা : ঘটনাস্থলে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম   ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্যের প্রতিবাদে সদর উপজেলা যুবলীগের বিক্ষোভ   আজ জাতীয় গণহত্যা দিবস   আতিয়া মহলের বাসিন্দার প্রশ্ন : আমরা কি জিম্মি?   পুলিশ বক্সে ঢোকার চেষ্টা করেছিল আত্মঘাতী যুবক!   টুকের বাজারে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন   কী আছে জঙ্গি আস্তানার আতিয়া মহলের জিম্মিদের ভাগ্যে?   ঢাকায় বিমানবন্দরের সামনে আত্মঘাতী হামলায় এক জঙ্গি নিহত   আতিয়া মহলে অভিযান এসেস করতে ঘটনাস্থলে প্যারা-কমান্ডো দল   আতিয়া মহলে জিম্মি আছেন দু’শতাধিক মানুষ   জঙ্গি আস্তানায় অভিযান: উৎকণ্ঠায় অপেক্ষা উৎসুক জনতার   অশ্রুসিক্ত নয়নে স্বামী মহসীন আলীর স্বাধীনতা পুরস্কার গ্রহণ করলেন স্ত্রী সায়রা মহসীন   জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে সোয়াত, অ্যাম্বুলেন্স প্রবেশ   দক্ষিণ সুরমায় ‘জঙ্গি আস্তানা’ ঘিরে ফেলেছে সোয়াত: যে কোন সময় অভিযান   সিলেট পৌঁছেছে সোয়াত টিম : চলছে মূল অভিযানের প্রস্তুতি

লাশের সঙ্গে দেয়া হবে জীবন্ত সাপ!

প্রকাশিত : ২০১৫-০৫-১৮ ১৫:৩৬:১৬

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : ॥ সাপ ধরতে পারলে খুব আনন্দ পেতেন কৃষক আব্দুল হালিম। মাঝে মধ্যে তিনি সাপ ধরে খেলা করতেন। কে জানে সেই সাপই তার কাল হয়ে দাঁড়াবে। অবশেষে এই সাপের কামড়েই চলে যেতে হয়েছে পৃথিবী ছেড়ে। তবে তিনি একাই পৃথিবী ছেড়ে যাচ্ছেন না, সঙ্গে যাচ্ছে তাকে কামড় দেয়া জীবন্ত সাপও। সাপটিকে তার সঙ্গে দেয়ার ব্যবস্থা তার পরিবারের পক্ষ থেকেই করা হয়েছে।

রোববার কৃষি জমিতে কাজ করছিলেন রাজধানীর দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের সুভাঢ্যা ইউনিয়নের চুনকুঠিয়া গ্রামের কৃষক আব্দুল হালিম (৪৫)। কাজ করার সময় হঠাৎ করে একটি বিষধর সাপ তাকে কামড় দেয়। সঙ্গে সঙ্গে তিনি বিষধর সাপটিকে ধরেও ফেলেন। এরপর তিনি প্লাস্টিকের ব্যাগে সাপটি রেখে দেন। তার অবস্থা অবনতি হতে থাকলে স্বজনরা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

সোমবার সকাল ৭টায় তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মারা যাওয়ার পর তার লাশটি ঢামেক হাসপাতাল মর্গে নিয়ে রাখা হয়েছে। কিন্তু পরিবারের লোকজন সেই সাপটিকে তার লাশের ট্রলিতে করে মর্গে রেখে দিয়েছেন।

মর্গের লোকজন জানতে চায় এই ব্যাগে কি? তখন পরিবারের লোকজন জানায়, যে সাপটির কামড়ে তিনি মারা গেছেন সেই সাপটি ব্যাগে রাখা আছে। তার সঙ্গে সাপটিকেও দিয়ে দেয়া হবে। এ নিয়ে মর্গে হৈ চৈ শুরু হয়ে যায়। কারণ এমনিতেই এ বিষধর সাপ একজনকে কামড়িয়েছে। সে জন্য অনেককেই ভয়ে দৌড়াতে দেখা গেছে। কেউ কেউ প্যাকেটটি খুলতে চাইলেও সাপের মড়মড়ানির শব্দে কেউ আর সাহস পাননি। এ প্রতিবেদন লেখার সময় সাপটি লাশের সঙ্গে ট্রলিতেই রাখা ছিল।

এদিকে ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে উৎসুক জনতা সাপটিকে দেখার জন্য মর্গ এলাকায় ভীড় জমায়। তবে মর্গের অনেকেই বিষয়টি নিয়ে রীতিমতো আতঙ্কিত।

স্বজনরা জানিয়েছেন, এই সাপটি কৃষক আব্দুল হালিমের লাশের সঙ্গে কবরে দিয়ে দেয়া হবে। সেটা জীবন্ত হোক আর মর্গ থেকে ময়না তদন্ত করার পর হোক।

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত