সর্বশেষ

  হাওরবাসীর দুর্যোগ নিয়ে তামাশা করবেন না   “আমি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, আমার কোন চাওয়া পাওয়া নেই”   গোলাপগঞ্জে বিদ্যুতায়িত হয়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু   রশিদিয়া দাখিল মাদরাসায় বিশ্ব বই দিবস উদযাপন   এনইইউবিতে ‘ক্যারিয়ার ক্লাব’র যাত্রা শুরু   ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নের বাজেট ঘোষণা   জামালগঞ্জে এক কিশোরীর দুই জন্ম নিবন্ধন: বাল্যবিবাহ সম্পন্ন, এলাকায় তোলপাড়   বিশ্বনাথে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে র‌্যালী   কাউন্সিলর আফতাবকে ৭নং ওয়ার্ড যুবলীগের সংর্বধনা   সব চেষ্টা ব্যর্থ, তলিয়ে গেল শনি: হাওরপাড়ে চলছে কৃষকের আহাজারি   হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার পাবে মাসে ৩০ কেজি চাল ও নগদ অর্থ   মহাজনী ও এনজিও ঋনের চাপ: সব হারিয়ে দিশেহারা হাওরবাসী   বাবাকে ছাপিয়ে যেতে চান টাইগার শ্রফ   বাজারে আসুসের তিন জেনফোন   সুনামগঞ্জে শনির হাওরের বাঁধে ৩টি স্থানে ভাঙন   মহামতি লেনিনের জন্মবার্ষিকীতে সিলেটে লাল পতাকা মিছিল   ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে   লাখাইয়ে দেশীয় অস্ত্রসহ ৩ ডাকাত গ্রেফতার   আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন তারেকের শাশুড়ি সিলেটের সৈয়দা ইকবাল মান্দ বানু   শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি হয়েছে : সিলেটে খাদ্যমন্ত্রী

সাকার প্রাণভিক্ষা : দল ও স্ত্রীর ভিন্নমত

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২১ ১৪:২৪:৪৫

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : শনিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৫ ॥ প্রাণভিক্ষা চাইবেন না সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী। বিএনপি’র পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানানো হয়েছে। দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এই সংবাদ সম্মেলন করেন।

তবে সেখানে উপস্থিত ছিলেন- সাকা চৌধুরীর স্ত্রী ফারহাত কাদের চৌধুরী। তিনি জানালেন, প্রাণভিক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ ও এখতিয়ার সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর নিজেরই।

সংবাদ সম্মেলনে গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, আমরা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পরিবারের কাছ থেকে জেনেছি, তারা যখন কারাগারে দেখা করতে যান তখন সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী জানিয়েছেন তিনি প্রাণভিক্ষা চাইবেন না।

এর পরপরই ফারহাত কাদের চৌধুরী মাইক্রোফোন নিয়ে জানান, বিষয়টি এমন নয়, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী প্রাণভিক্ষা চাইবেন কি না সে সিদ্ধান্ত তিনি নিজেই নেবেন।

এসময় ‘জাতীয় সংসদে দীর্ঘদিনের সহকর্মী হিসেবে বিষয়টি রাষ্ট্রপতি সুবিবেচনা করবেন,’ বলে আশা প্রকাশ করেন ফারহাত কাদের চৌধুরী।

উল্লেখ্য, কারাবিধি অনুযায়ি আইনি প্রক্রিয়া শেষ হয়ে যাওয়ার পর ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কেবল পরিবারের সঙ্গেই দেখা করতে পারে। এবং রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদনের বাইরে ব্যক্তিগত চিঠি পাঠাতে পারে না। ফাঁসির আসামি প্রাণভিক্ষা না চাইলে যে কোন সময়ে ফাঁসি কার্যকর হতে পারে।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/বিএন/ওয়াইএম/এসবি

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত