সর্বশেষ

  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদোন্নতি পেলেন জ্যোতির্ময়   নগরী থেকে সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার   জামিন পেলেন পৌর শ্রমিকলীগ নেতা তানিন   বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা   সরকারের পাশাপাশি অসহায়দের পাশে বিত্তবানদের এগিয়ে আসা উচিত: নাদেল   সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ফটোগ্রাফিক সোসাইটির নতুন কমিটি   নগরীতে পুলিশের অভিযানে ভারতীয় মদসহ গ্রেফতার ১   বাবনিয়া হাসিমপুর নিজামিয়া আলিম মাদ্রাসায় ওয়াজ মাহফিল সম্পন্ন   শুরুতেই সিলেটবাসীকে সুখবর দিলেন শাহজাহান কামাল   ‘শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বে বাংলাদেশ ‘জঙ্গি-সন্ত্রাসমুক্ত’ রাষ্ট্র হয়েছে’   শহরতলীর তেমুখীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩   বাগবাড়ীতে শিক্ষকের বাসায় দুর্ধর্ষ চুরি   শাবিতে তিনদিনব্যাপী ‘উৎসবে অনিরুদ্ধ’ শুরু   জেলা বিএনপি নেতা ফারুকের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ   গোপালপুরে মাঠে শীতকালীন বিষমুক্ত সবজির বাম্পার ফলন   মনিপুরি পাড়ায় ৫ দিনব্যাপি মহানামযজ্ঞ উৎসব শুরু   কমরেড অমল সেনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা   আব্দুর রহমান বর্নী (রহঃ) ইছালে সওয়াব মাহফিল বাস্তবায়নে প্রস্তুতি সভা   ওসামানী স্মৃতি পরিষদ বাংলাদেশ’র শীতবস্ত্র বিতরণ   দি হলি চাইল্ড স্কুল এন্ড কলেজ’র নতুন ক্যাম্পাস উদ্বোধন

বিএনপি ছাড়লেন শাহরিয়ার রুমী

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-১৫ ১৯:০২:৫৬

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : রোববার, ১৫ নভেম্বর ২০১৫ ॥ ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী দল ছাড়ার পর দুই সাপ্তাহ না যেতেই পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এম এম শাহরিয়ার রুমী।

একসময় আওয়ামী লীগ থেকে বিএনপিতে আসা এই রাজনীতিক এখন আবার বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতিতে ফিরতে চান।

রোববার তিনি জানান, কুরিয়ার করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বরাবরে তিনি পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন। ফরিদপুর জেলা কমিটির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের পদ থেকেও তিনি ইস্তফা দিয়েছেন।

“আমি মনে করি, মুক্তিযুদ্ধের শক্তি, যারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে দেশকে স্বাধীন করেছিলাম, আজ আমাদের সবার এক হওয়া উচিৎ। সেই কারণে বিএনপি থেকে আমি পদত্যাগ করেছি।”

২০০১ সালের নির্বাচনে ফরিদপুর-৫ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে পরের বছর ৪ মে বিএনপিতে যোগ দেন রুমী। ওই আসনে সে সময় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরুল্লাহকে মনোনয়ন দেয় আওয়ামী লীগ। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে পরাজিত হন রুমী।

পুরো পরিবার আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। তার বাবা শামসুদ্দিন মোল্লা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ট বন্ধু ছিলেন।

রুমী জানান, ২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারি যে নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল, তাতে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছিলেন তিনি। পরে ওই নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়।

এখন আওয়ামী লীগে যোগ দেবেন কিনা জানতে চাইলে রুমী বলেন, “আমাদের পুরো পরিবারই আওয়ামী লীগ করে। আমি ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগ করেছি।

“২০০২ সালে কেবল আমিই পরিবারের বাইরে এসে বিএনপিতে যোগ দিয়েছিলাম। এটা নিয়ে এতোদিন অস্বস্তিতে ছিলাম। এই পদত্যাগে তা কেটে গেল। এখন কী করব সে সিদ্ধান্ত নিইনি।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফরিদপুর জেলা বিএনপির সভাপতি জহুরুল হক শাহজাদা মিয়া বলেন, “উনি অনেকদিন ধরেই রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন না। কেন পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা জানি না।”

তিনি বলেন, “রুমী সাহেব যখন বিএনপিতে আসেন তখন কোনো চাপে আসেননি, নিজ ইচ্ছায় এসেছিলেন। বিএনপি অনেক বড় দল, দুই একজন চলে গেলে দলের কিছু হয় না।”

চলতি মাসের প্রথম দিকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী স্বাস্থ্যগত কারণ দেখিয়ে দল ছেড়ে রাজনীতি থেকে অবসরের ঘোষণা দেন।

আওয়ামী লীগ নেতারা সে সময় বলেছিলেন, বিএনপিতে এখনও যারা মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসী আছেন, তারাও একে একে দল ছাড়বেন।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/এমওআর

সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত