সর্বশেষ

  কানাইঘাটে যথাযোগ্য মর্যাদায় আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালিত   বৃটেন প্রবাসী বাঙালিরা বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় স্মরণ করল ভাষাশহীদদের   উলালমহল পূর্বপাড়া একতা সমিতির বার্ষিক ক্রীড়ার পুরস্কার বিতরণ   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ক্রিকেট টুর্নামেন্টর পুরস্কার বিতরণী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি   বিশ্বনাথে ১০ মামলার আসামী ডাকাত আবুল গ্রেপ্তার   মাতৃভাষা দিবসে বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভা   সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার : আজও চালু হয়নি পাঠাগার ও মুক্তিযুদ্ধের সংগ্রহশালা   এমপি লিটন হত্যা : সুন্দরগঞ্জের সাবেক এমপি কাদের গ্রেপ্তার   শানে রিসালত মহাসম্মেলন সফলের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা কাল   আরডিআরএস বাংলাদেশ শ্রীমঙ্গল ইউনিটের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি   জেদ্দায় যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত   লাখো মোমবাতি জ্বালিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ   বলদী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন   দক্ষিণ এশিয়ান সাহিত্য সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন মাইস্নাম রাজেশ   বাইসাইকেলে বরযাত্রা!   ‘শিশুদের নিজেদের সংস্কৃতির শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে’   সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন   আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে দক্ষিণ সুরমা ছাত্রলীগের সভা   মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে খাদিমনগর যুব কল্যাণ পরিষদের শ্রদ্ধাঞ্জলি

মা, এ দেখাই যে শেষ দেখা...

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২৩ ২৩:০১:১৩

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৫ ॥ ‘মা, জননী, জন্মভূমি ছাড়িয়া গেলাম। জানি না, ওখানে জন্মভূমির মতো মাতৃছায়া পাবো কিনা। হামার জন্য আর্শিবাদ চাই। শেষ বারের মতো আর্শিবাদ করেন। হয়তো আর কোনো দিন দেখা-সাক্ষাৎ হবে না। এ দেখাই যে শেষ দেখা হবে, কখনোই ভাবি নাই।’

সোমবার সকালে চিরকালের জন্য নিজের জন্মভিটা ছেড়ে ভারতে নতুন ঠিকানার উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেন পাটগ্রামের বিলুপ্ত ১১৯ নম্বর বাঁশকাটা ছিটমহলের বর্মণপাড়ার ষাটোর্ধ উকিল চন্দ্র বর্মণ।

বিদায় নেয়ার আগে এসব কথা বলে বিলাপ করতে থাকেন। এসময় উকিল বর্মণ আরো বলেন, হামার সবাকে ক্ষমা করে দিবেন হে ভগবান! তোমার কাছে প্রণাম করিতেছি, তুমি বঙ্গজননী, জন্মভূমির সবাকে ভালো রাখিও। ভাল থাকিস।’

সবচেয়ে নিকটতম প্রতিবেশী ইদ্রিস আলীর কাছ থেকে বিদায় নিতে গিয়ে তাকে জড়িয়ে ধরেন উকিল চন্দ্র। এসময় আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন তিনি।
 
জন্ম ভিটামাটি ও প্রতিবেশীদের মায়াজাল ছিন্ন করে ভারতে চলে যাওয়া পাটগ্রামের বিলুপ্ত ৪টি ছিটমহলের ৩০টি পরিবারের ১৩০ ট্রাভেলপাসধারীর নেতৃত্ব দেন এই উকিল চন্দ্র বর্মণ। তার চার ছেলে ও তিন মেয়ে। এক ছেলেকে বিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশেই। বাকি তিন মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন ভারতের কোচবিহার জেলার ধুবগুড়ি ও নয়ারহাট এলাকায়।

উকিল বর্মণের ছেলে হৃদয় বর্মণ ভারতে যেতে রাজি না হওয়ায় তাকে রেখেই চলে গেলেন মা শশী বালা। কিন্তু যাওয়ার আগে মা-ছেলের হৃদয়বিদারক আহাজারিতে ভারী হয়ে ওঠে পাটগ্রামের আকাশ বাতাস।

মাকে জড়িয়ে ধরে হৃদয় বারবার ডুকরে ডুকরে কেঁদে বলছিলেন, ‘মা জানি না আর কবে তোমার সাথে দেখা হবে। কবে দেখতে পাব তোমার মায়াবি মুখটাকে! আশিবার্দ করিও মা , ক্ষমা করিও আমাকে।

নেবিচ্ছেদের এই কান্না শুধু উকিল চন্দ্র বর্মন ও শশী বালার একার নয়। তার মতো ১১৯ নম্বর বাঁশকাটা ছিটমহলের অনেকেরই। বর্মণপাড়ার উকিল চন্দ্রের মতো ডুকরে কাঁদছিলেন স্কুলছাত্রী সুচরিতা রাণী বর্মণ, জোসনা রানী বর্মণ, সুমন চন্দ্র বর্মণসহ অন্যরা। যেন তাদের কান্নায় ১১৯, ১১২, ১১৫ নম্বর বাঁশকাটা ও ১৫ নম্বর খরিখরি ছিটমহলের আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে ওঠে।

ভারতে গমনেচ্ছুকদের কান্নায় স্থানীয় প্রতিবেশীরাও কান্নায় আবেগাপ্লুত হন। এসময় এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

সোমবার দুপুর একটার দিকে বুড়িমারী স্থলবন্দর পুলিশ ইমিগ্রেশনের কার্যক্রম শেষে জিরোপয়েন্টে পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নূর কুতুবুল আলম ভারতের নয়া ঠিকানায় যাওয়া এসব নাগরিককে মিষ্টি মুখ করান। রজনীগন্ধার একটি করে স্টিক হাতে তুলে দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় জানান। এসময় পাটগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান রুহুল আমীন বাবুল ও জোংড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মাহমুদুন্নবী শাহীন উপস্থিত ছিলেন।

অপরদিকে, ভারতের কোচবিহারের অতিরিক্ত জেলা শাসক আয়শা রাণী ও বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনের প্রথম সচিব রামাকান্ত গুপ্তা উপস্থিত থেকে ভারতীয় নাগরিকত্ব গ্রহণকারীদের মিষ্টিমুখ করিয়ে হাতে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন। পাশেই স্থাপিত মঞ্চে ভারতীয় শিল্পীরা মলিন চেহারার নয়া নাগরিকদের মনোমুগ্ধকর গান পরিবেশনে স্বাভাবিক করার চেষ্টা করেন। এছাড়াও বৈরাতি নৃত্য পরিবেশনও করা হয়।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত