সর্বশেষ

  মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে খাদিমনগর যুব কল্যাণ পরিষদের শ্রদ্ধাঞ্জলি   সিলেটে কাল থেকে শুরু হচ্ছে ‘বেঙ্গল সংস্কৃতি উৎস’   রশিদিয়া দাখিল মাদরাসায় মাতৃভাষা দিবস উদযাপন   সিলেটে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে উঠে শ্রদ্ধা জানালেন বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তারা!   ‘বাংরেজি’ ছাড়াতে হবে: শেখ হাসিনা   কমলগঞ্জে ধলাই নদীতে পড়ে শিশুর মৃত্যু   কমলগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত   নানা আয়োজনে মাতৃভাষা দিবস পালন করলো মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি   ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে সিলেটে শুরু হচ্ছে ‘লন্ডন ১৯৭১’ আলোকচিত্র প্রদর্শনী   স্কলার্স একাডেমিতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন   জগন্নাথপুরে জুয়ার আসর থেকে আটক ৫   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে কিশোরী ধর্ষিত : ধর্ষক আটক   ব্লগার রাজীব হত‌্যা মামলার আসামি জঙ্গি রানা রিমান্ডে   আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে সিলেট জেলা বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের পুষ্পস্তবক অর্পণ   সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার   কমলগঞ্জে আইনজীবির বাড়িতে ডাকাতি : আহত ১   শাবিতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন   আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের পুষ্পস্তবক অর্পণ   যেভাবে গ্রেফতার হলো ব্লগার রাজীব হত্যার মূল আসামি রানা   কমলগঞ্জের ধলাই নদী থেকে স্কুলছাত্রের মৃতদেহ উদ্ধার

সাকার দাফন সম্পন্ন : জানাজায় ছিলেন না দুই ভাই

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২২ ১১:১৮:৪৯

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : রোববার, ২২ নভেম্বর ২০১৫ ॥ ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পর অ্যাম্বুলেন্সে করে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার তার পৈত্রিক বাড়িতে। সেখানেই বায়তুল বিলালের পারিবারিক কবরস্থানে রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তার দাফন সম্পন্ন হয়।  এরআগে সকাল ৯টার দিকে তার মরদেহ পৌঁছায় সেখানে।

কঠোর পুলিশি প্রহরায় রাউজানের গহিরায় গ্রামের বাড়িতে যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে জানাজায় উপস্থিত ছিলেন না তার দুই ভাই বিএনপি নেতা গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামালউদ্দিন কাদের চৌধুরী।

সকাল ৯টা ১০ মিনিটে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ডেপুটি জেলার মাজহার বিপ্লবের কাছ থেকে সাকার মরদেহ বুঝে নেন তার ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী। এর মিনিট দশেক পরেই সাকার জানাজার নামাজ পড়া হয়। হেফাজত ইসলামের সিনিয়র নায়েবে আমির মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী জানাজার নামাজ পড়ান। 

এ সময় সাকার পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ স্বজনরা উপস্থিত থাকলেও ছিলেন না তার আপন দুই ভাই গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামাল উদ্দিন কাদের চৌধুরী। জানাজায় অংশ নেননি সাকার চাচাত ভাই ও আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীও। তবে তার ছেলে এবিএম ফয়েজ কাদের চৌধুরী ছিলেন সেখানে।

সাকার পরিবারের লোকজন জানান, বিকেলে অনুষ্ঠিতব্য গায়েবানা জানাজায় অংশ নেবেন তারা। সকালে ফ্লাইট না পাওয়ায় তারা জানাজায় অংশ নিতে পারেননি।

জানা যায়, সাকা চৌধুরীরা চার ভাই ছিলেন। এর মধ্যে সাকাই সবার বড়। তার একভাই সাইফুদ্দিন কাদের চৌধুরী গত এপ্রিলে মারা গেছেন।

গিয়াস কাদের বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকলেও জামাল কাদের রাজনীতি করেন না। গিয়াস বর্তমানে বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। 

এদিকে মূল পারিবারিক কবরস্থানে জায়গা না থাকায় নতুন কবরস্থানে সাকা চৌধুরীকে দাফন করা হয়।

এর আগে শনিবার রাত ৩টার পর থেকে সেখানে পুলিশ পাহারায় কবর খোঁড়া শুরু হয়। সাত থেকে আটক জন গোড়খোদক খননের কাজ করেন।

তবে দাফনের আগে তার জানাজা নিয়ে শুরু হয় উত্তেজনা। সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে গহিরা কলেজ মাঠে জানাজা আয়োজন করতে চায় স্থানীয়রা। তবে প্রশাসনের বাধায় তা বন্ধ হয়ে যায়। পরে তার বাড়ির পাশেই জানাজার নামাজ পড়া হয়। 

এদিকে যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মরদেহ প্রতিরোধে রাউজান উপজেলার প্রবেশ পথসহ বিভিন্ন পয়েন্টে মধ্যরাত পর্যন্ত আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ও মুক্তিযোদ্ধারা অবস্থান নিলেও পরে পুলিশের তৎপরতায় তারা সরে যায়।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত