সর্বশেষ

  বাগবাড়িতে শ্রীশ্রী গৌরাঙ্গ মহাপ্রভু আখড়ার পুনঃনির্মাণ কাজের উদ্বোধন   কলকাতায় সম্মাননা পাচ্ছেন রাজ্জাক   জাকির হোসেনের সহায়তায় ব্রেইন টিউমারে আক্রান্ত রুমা ভারতে : চলতি সপ্তাহে অপারেশন   ভাস্কর্য অপসারণ ও শিক্ষক গ্রেফতারের প্রতিবাদে নিউইয়র্কে বিক্ষোভ   ভয়াবহ বিস্ফোরণ সাভারের ‘জঙ্গি আস্তানায়’   আর্জেন্টিনার কোচ সাম্পাওলিই   সাভারে ‘জঙ্গি আস্তানা’, পৌঁছেছে বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল   ডাব দেবে গরমে সতেজ অনুভূতি   কুড়িয়ে পাওয়া নবজাতকের দায়িত্ব নিলেন ওসি   গর্বিত রুনা লায়লা   হুমকিতে হাকালুকি হাওর এলাকার শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন   বড়লেখায় চেয়ারম্যান কল্যাণ ট্রাস্টের উদ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা   আবু সাঈদ হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে জাউয়ায় মানববন্ধন   আমাদের পরিচয় ঢাকা পড়ে গেছে বিদেশি পরিচয়ে : এম.এ মান্নান   ইসলামী ব্যাংকের সিলেট জোনের ব্যবসায় উন্নয়ন সম্মেলন অনুষ্ঠিত   সহায়তার হাতে মলিন মুখে খুশির ঝিলিক   সুতাংয়ের ভূয়া ডা. বেলালকে গ্রেফতারের দাবি   জকিগঞ্জে এসএসসি উত্তীর্ণদের সংবর্ধনা   জগন্নাথপুরে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের আত্মপ্রকাশ ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ   মৌলভীবাজারে বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার

একইসঙ্গে ফাঁসিতে ঝুললো সাকা-মুজাহিদ

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২২ ০১:০৫:২৫

আপডেট : ২০১৫-১১-২২ ০১:৩৫:৫৭

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : রোববার, ২২ নভেম্বর ২০১৫ ॥ একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকে ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়ে রায় কার্যকর করা হয়েছে।

শনিবার মধ্যরাতের কোনো এক সময় প্রথমে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী এবং পরে মুজাহিদের ফাঁসি কার্যকর করা হয় বলে নিশ্চিত করেছে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার সূত্র।

এরা দু’জনেই রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চেয়েছিলেন বলে আইনমন্ত্রী জানিয়েছিলেন এবং সে আবেদন নাকচও করে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, তারা ক্ষমা প্রার্থনা করে প্রাণভিক্ষা চাননি- সর্বশেষ সাক্ষাতে পরিবারের কাছে এটাই বলেছেন তারা।

ফাঁসি কার্যকরের পর নিয়মিত আনুষ্ঠানিকতা সেরে তাদের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হবে। পুলিশ ও র‍্যাবের বেশ কয়েকটি গাড়ি নিরাপত্তার জন্য মরদেহবাহী অ্যাম্বুলেন্স দুটির সঙ্গে পাঠানো হবে।

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিদের মধ্যে তৃতীয় ও চতুর্থ ব্যক্তি হিসেবে যথাক্রমে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মুজাহিদের রায় কার্যকর করা হলো।

এর আগে রাত ৮টা ৫৫ মিনিটের দিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন ঢাকা জেলা প্রশাসক তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। তার আগে কারাগারে যান আইজি (প্রিজন) সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন, অতিরিক্ত আইজি (প্রিজন) কবির হোসেন ও ডিআইজি (প্রিজন) গোলাম হায়দার। জ্যেষ্ঠ কারা তত্ত্বাবধায়ক ফরমান আলী আগে থেকেই কারাগারের ভেতরে ছিলেন বলে জানা যায়।

জল্লাদ
সাত জন জল্লাদ তাদের ফাঁসি কার্যকর করেছেন। এরা হলেন- ইকবাল, মাসুদ, আবুল, মোক্তার, রাজু, শাহজাহান ও হযরত। এসব জল্লাদ বিভিন্ন সময় ফাঁসি আসামিদের ফাঁসির দণ্ড কার্যকর করেন। এদের মধ্যে শাহজাহান ও রাজু যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্লা ও কামারুজ্জামানের ফাঁসি কার্যকরে অংশ নিয়েছিলেন।

অ্যাম্বুলেন্স
রাত ১২টা ৩১ মিনিটে লাশ বহন করে এমন চারটি ফ্রিজিং অ্যাম্বুলেন্স কারাগারের সামনে এনে রাখা হয়। ১২টা ৩৮ মিনিটে  অ্যাম্বুলেন্সগুলো কারাগারে প্রবেশ করে।

স্বজনদের সাক্ষাৎ
সর্বশেষ শনিবার রাত সাড়ে ৯টায় সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর সঙ্গে শেষ দেখা করতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন তার স্বজনেরা। সোয়া এক ঘণ্টা পর তারা কারাগার থেকে বের হয়ে আসেন। স্ত্রী-পুত্র-কন্যাসহ ১৮ জন স্বজন তার সঙ্গে দেখা করেন।

রাত ১০টা ২৫ মিনিটে আলী আহসান মুজাহিদের সঙ্গে শেষ দেখা করতে কারাগারে প্রবেশ করেন স্বজনরা। তারা ঘণ্টা পর বের হন। স্ত্রী ও ছেলেসহ ৮ জন স্বজন তার সঙ্গে দেখা করেন।

বাংলামেইল২৪ডটকম/ এসএম/ এসসি/ আইএ/ কেএম/ বাআই/ জেএ

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত