সর্বশেষ

  ছাতকে পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ আটক ১   শ্রীমঙ্গল বিজিবি’র বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উদ্বোধন   মুক্তিযোদ্ধারা হচ্ছেন জাতির সূর্যসন্তান : শফিক চৌধুরী   বিয়ানীবাজার পৌর মেয়রের বাজেটে বড় চমক : সাড়ে ৪৬ কোটি টাকার বাজেটে উন্নয়ন ব্যয় ৯১ শতাংশের বেশি   দিরাইয়ে যুব নারীদের হস্তশিল্প প্রশিক্ষণ কোর্স সম্পন্ন   ডিএনএ রিপোর্টে সত্যতা মেলেনি : আতিয়া মহলে নিহতদের মধ্যে নেই জঙ্গি মুসা   বাহুবলে অবৈধ স্পিরিট বিক্রি করায় দুই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা   ছাতকে ১৬টি বিষধর সাপ আটক   সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে হাইওয়ে পুলিশের অসহনীয় চাঁদাবাজী   যাকাতের অর্থ আয়বর্ধক কাজে ব্যয় করতে হবে: রাহাত আনোয়ার   বজ্রপাতের কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড় ধস   কমলগঞ্জে সংসদ সদস্য’র ঐচ্ছিক তহবিলের টাকা বিতরণ   এপেক্সিয়ান চন্দন দাসের মায়ের মৃত্যুতে সাবেক মেয়র কামরানের শোক   মওদুদের জন্য খাট পাঠাতে চান নাসিম   মসজিদ আল হারামে শবে কদরের রাতে ২০ লাখের বেশি মানুষ মোনাজাতে শরীক   পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের শুভেচ্ছা   জ্যেষ্ঠ সাংসদদের পাশে পাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী   গাজীপুরে ট্রাকের ধাক্কায় ১ জনের মৃত্যু   গ্রামীনফোন’র ঈদ আয়োজনে আয়নাবাজি : ৪টি চ্যানেল, ২০টি নাটক   বৃষ্টির দিনে যেমন পোশাক

নোবেল বিজয়ী জার্মান সাহিত্যিক গুন্টার গ্রাসের চিরবিদায়

প্রকাশিত : ২০১৫-০৪-১৩ ১৮:০১:২৮

উত্তরপূর্ব ডেস্ক, ১৩ এপ্রিল ২০১৫ ॥ ইউরোপীয় সাহিত্যে যিনি জাদু বাস্তবতার তুলি বুলিয়েছিলেন, সেই নোবেল বিজয়ী জার্মান সাহিত্যিক গুন্টার গ্রাস আর নেই।
তার বইয়ের প্রকাশক সংস্থা স্টেইডেল জানিয়েছে, সোমবার জার্মানির উত্তরাঞ্চলের লুবেক শহরের এক হাসপাতালে এই ঔপন্যাসিকের মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর।  
গ্রাস ছিলেন একাধারে লেখক, কবি, চিত্রশিল্পী ও ভাস্কর। তবে বিশ্বের পাঠক তাকে চেনে কালজয়ী উপন্যাস দ্য টিন ড্রামের লেখক হিসাবে।   
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় আরও অনেক জার্মান যুবকের মত গ্রাসকেও বাধ্যতামূলকভাবে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে হয়েছিল। সেই গ্রাসই ১৯৫৯ সালে প্রকাশিত টিন ড্রামে জার্মানিকে মনে করিয়ে দেন নাৎসি বর্বরতা আর জার্মান ইতিহাসের এক পতনের অধ্যায়।
১৯৯৯ সালের নোবেল সাহিত্য পুরস্কারের জন্য গ্রাসের নাম ঘোষণা করে সুইডিশ একাডেমির বিবৃতিতে বলা হয়, তিনি তার অসামান্য লেখনিতে ইতিহাসের ভুলে যাওয়া মুখখানি এঁকেছেন।
চওড়া কাঁধ আর ঝোলা গোঁফের এই মানুষটির জন্ম ১৯২৭ সালে, পোল্যান্ডের ডানজিশে। সেখান থেকে জার্মানিতে যাওয়ার পর শুরু তার নতুন জীবন। পাথর খোদাই দিয়ে শুরু করে শিল্পকলার শিক্ষা নিতে নিতেই শুরু হয় তার সাহিত্যচর্চা।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী জার্মানিতে সাহিত্যিকরা যেখানে রাজনৈতিক বিতর্ক থেকে নিজেদের নিরাপদ দূরত্বে রাখতে পছন্দ করতেন, গ্রাস সেখানে ছিলেন দারুণ ব্যাতিক্রম। তার মতে, মানবিক ও রাজনৈতিক বিতর্কের মীমাংসায় সামনের সারিতে থাকা একজন লেখকের দায়িত্ব।  
সাম্রাজ্যবাদ আর ইসরায়েলের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধেও সরব হয়েছিলেন গ্রাস; ইসরায়েলের সমালোচনায় একটি কবিতা লিখে ২০১২ সালে তাকে নিজের দেশেও বিতর্কের মুখে পড়তে হয়।
১৯৮৬ সালের ডিসেম্বরে স্ত্রী উটে গ্রাসকে নিয়ে বাংলাদেশে আসেন গুন্টার গ্রাস। পুরান ঢাকায় ঘুরে ঘুরে চিনতে চেষ্টা করেছেন নাগরিক বাঙালিকে। পরে আরেকবার বাংলাদেশে এসেছিলেন এই খ্যাতিমান লেখক।

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত