সর্বশেষ

  বড়লেখার ডিমাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কমিটি গঠন   “হাওর অঞ্চলের শিক্ষকদের আরো দায়িত্বশীল ও সচেতন হতে হবে”   সাফি’র অলরাউন্ড নৈপূণ্যে ব্লু-বার্ডের বড় জয়   ধর্মপাশায় ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার-১   দিরাইয়ে জলমহাল দখলকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ: গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত-৩   আম্বরখানায় অসহায়দের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ   অসুস্থ শিক্ষকের পাশে কোম্পানীগঞ্জ ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি সিলেটের নেতৃবৃন্দ   তাহিরপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৩২ হাজার টাকা জরিমানা আদায়   রাগীব আলীর পক্ষে ২ জনের সাফাই সাক্ষ্য প্রদান   কমলগঞ্জের পতনঊষারে ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট সম্পন্ন   এই ৮ জনের কাছেই পৃথিবীর অর্ধেক সম্পদই   গোয়াইনঘাটে র‌্যাবের অভিযানে ফেন্সিডিলসহ আটক ১   হবিগঞ্জে ট্রাক থেকে ফেলে শিশু হত্যার অভিযোগ   প্রবীণ রাজনীতিবিদ, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মরহুম ইর্শ্বাদ আলীর ২৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ   জকিগঞ্জে কলেজছাত্রীকে কোপানোর ঘটনায় মায়ের মামলা   জালালাবাদে দু’পক্ষের সংঘর্ষ : আহত অর্ধশতাধিক   ছাত্রদল নেতা মহসিনের মায়ের ইন্তেকাল   হবিগঞ্জে ট্রাক্টরচাপায় স্কুলছাত্র নিহত   ‘শালা, তোদের জন্য এই অবস্থা’   মানসিক রোগীদের জন্য ক্যাপ ফাউন্ডেশনের প্রকল্প গ্রহণ

সিলেটের শিল্প-সংস্কৃতির আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে জেলা শিল্পকলা একাডেমী

প্রকাশিত : ২০১৫-০৭-০১ ২৩:২৩:৪৩

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : বুধবার, ১ জুলাই ২০১৫ ॥ হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতিকে বিকশিত করার স্বপ্ন নিয়ে ১৯৭৪ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী প্রতিষ্ঠা করেন। সংস্কৃতি চর্চা, এর কার্যক্রম পরিচালনা শুধুমাত্র রাজধানী কেন্দ্রিক না রেখে দেশের সর্বত্র এর প্রচার, প্রসার সম্প্রসারিত করাও তাঁর স্বপ্নের অন্তর্নিহিত অন্যতম একটি বার্তা ছিল। যাঁর পরিপ্রেক্ষিতে জেলা পর্যায়ে শিল্প সংস্কৃতির চর্চা, প্রচার, প্রসার ও সম্প্রসারণের মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজটি নীরবে, নিভৃতে করে যাচ্ছে জেলা শিল্পকলা একাডেমীসমূহ।

সিলেট জেলা শিল্পকলা একাডেমী প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই তার অভিষ্ট লক্ষ্য পূরণের জন্য কাজ করে যাচ্ছে নিরবিচ্ছিন্নভাবে। সাম্প্রতিক সময়ে সিলেটের শিল্প সংস্কৃতির আলো ছড়িয়ে দিতে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর কিছু কার্যক্রম সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে।

শিল্পকলা একাডেমীতে প্রবেশের সময় আপনার চোখে পড়বে দৃষ্টিনন্দন কিছু ম্যুরাল যা একাডেমীর চারুকলা বিভাগের প্রশিক্ষণার্থীদের তুলির আচঁড়ে অঙ্কিত হয়েছে ইতিহাস, ঐতিহ্য, লোকজ সংস্কৃতি, গ্রামীণ জনপদ ও শিল্প সংস্কৃতির কিছু দৃশ্যপট। বাংলাদেশের সর্বত্র শিল্প ও সংস্কৃতি সঠিক পদ্ধতিতে চর্চার মাধ্যমে সংস্কৃতির উন্নয়ন ও বিকাশ সাধনের উদ্দেশ্যে সিলেট জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে নিয়মিত কার্যক্রম হিসেবে সংগীত, নৃত্য, তালবাদ্যযন্ত্র, নাটক, আবৃত্তি ও চারুকলা বিষয়ে ১৩ থেকে ৩৫ বছর বয়সী ৩০৮ জন প্রশিক্ষণার্থীকে বিষয়ভিত্তিক দক্ষ প্রশিক্ষক দ্বারা নিয়মিত প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা ও সৃজনশীল বাংলাদেশ বিনির্মাণের জন্য সকল বয়সী মানুষের কাছে শিল্পকলার সেবা পৌঁছে দেওয়ার নিমিত্তে বড়দের পাশাপাশি ৬ থেকে ১২ বছর বয়সী শিশুদেরও শিল্পকলার কর্মকাণ্ড ও প্রশিক্ষণের সাথে সম্পৃক্তকরণের লক্ষ্যে ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে চালু  করা হয়েছে সংগীত ও নৃত্য বিষয়ক প্রশিক্ষণ কার্যক্রম যেখানে ১০৫ জন প্রশিক্ষণার্থী নিয়মিত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে। যা সৃজনশীল সংস্কৃতি চর্চার প্রতি সকল স্তরের মানুষের অধিকতর আগ্রহ সৃষ্টি হচ্ছে বলে প্রতীয়মান হয়।

সংস্কৃতি চর্চাকে শুধুমাত্র বিনোদনের উপকরণের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে সমাজ জীবনে নৈতিকতার মানোন্নয়ন মাধ্যম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে জাতীয় দিবসসমূহ যথাযোগ্য মর্যাদায় উদ্যাপনের পাশাপাশি জেলা শিল্পকলা একাডেমী সম্মাননা পদক প্রদান, বাংলা বর্ষবরণ উৎসব, রবীন্দ্র-নজরুল জন্মজয়ন্তী, বসন্ত উৎসব, বিশ্ব নৃত্য দিবস, বিশ্ব সংগীত দিবস, মহান মুক্তিযুদ্ধ মহা নায়িকা সুচিত্রা সেন ও সমকালীন দেশীয় চলচ্চিত্র উৎসব, নবীন ও প্রবীণ চারুকলা প্রদর্শনী, সাহিত্য নির্ভর নাট্য প্রদর্শনী, নাটক বিষয়ক উচ্চতর প্রশিক্ষণ ও চারুকলা বিষয়ক কর্মশালা, বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, শিল্পকলা একাডেমীর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী, নবীন বরণ ও সমাপনী উত্তীর্ণদের বিদায় অনুষ্ঠান, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, এ্যাক্রোবেটিক প্রদর্শনীর মতো জাতীয় মানের বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করে প্রায় ২ বছরে জেলা শিল্পকলা একাডেমী সংস্কৃতি পিপাসু মানুষের অন্তরে আসন করে নিয়েছে।

এছাড়াও প্রশাসন ও সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান আয়োজিত অনুষ্ঠান সমূহে সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশগ্রহণ ও সহযোগিতার মাধ্যমে নিরন্তর কাজ করে চলেছে এই প্রতিষ্ঠানটি। অসচ্ছল সংস্কৃতি সেবী ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানসমূহকে ভাতা/অনুদান প্রদানের লক্ষ্যে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে প্রাপ্ত আবেদনপত্র সমূহ যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যেমে যাচাই-বাছাই পূর্বক মন্ত্রণালয়ে প্রেরণের মাধ্যমে শিল্পী ও সংগঠনসমূহকে সেবা প্রদানের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে জেলা শিল্পকলা একাডেমী সিলেট।

স্থানীয় শিল্পীদের জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের সুযোগ করে দেওয়ার মতো কাজটিও করে যাচ্ছে জেলা শিল্পকলা একাডেমী। নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসমূহ যাতে খুব সহজে সংস্কৃতি চর্চা চালিয়ে যেতে পারে সেই লক্ষ্যে চালু করা হয়েছে একটি মহড়া কক্ষ। শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি পিপাসু মানুষের জন্য তৈরি করা হয়েছে একটি লাইব্রেরী যা খুব শীঘ্রই উদ্বোধন হবে বলে জানা গেছে। এছাড়াও একটি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সেল গঠনের প্রক্রিয়া চলছে।

বর্তমানে সিলেটের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও শিল্প-সংস্কৃতির লালন, প্রচার, প্রসার ও সম্প্রসারণের দায়িত্বে অসিত বরণ দাশ গুপ্ত শিল্পকলা একাডেমীর জেলা কালচারাল অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন।

সিলেট শিল্পকলা একাডেমীর সাম্প্রতিক সময়ের উল্লেখযোগ্য এই সকল কর্মকাণ্ড এবং গতিশীলতা আনয়নের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বলেন ‘তিনি স্বপ্ন দেখেন সকলের সহযোগিতা, পরামর্শ ও দিক নির্দেশনা নিয়ে সিলেটকে সাংস্কৃতিক নগরীতে পরিণত করতে। সিলেটের গৌরবময় ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সাহিত্য-শিল্প-সংস্কৃতিকে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে তুলে ধরতে।

শিল্পকলা একাডেমীকে সকল সংস্কৃতিকর্মীদের মিলনমেলার কেন্দ্রস্থলে পরিণত করতে এবং সৃজনশীল বাংলাদেশ তৈরির লক্ষ্যে তার সকল প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’ তাই আমরাও চাই সিলেট শিল্পকলা একাডেমী তার অভিষ্ঠ লক্ষ্যে পৌঁছার জন্য সমাজের সকল স্তরের মানুষের সহযোগিতার হাত স¤প্রসারিত হউক। 

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত