সর্বশেষ

  সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কর্মসূচি পালিত   আম্বরখানায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ ও অটোরিক্সা শ্রমিকদের সংঘর্ষ: আহত ৬   রাজনগরে যৌতুকের দায়ে বিয়ে ভঙ্গ: অভিমানে যুবতীর আত্মহত্যা   তারেক রহমানের জন্মদিনে ছাত্রদলের শোভাযাত্রা ও মিন্টুর মুক্তির দাবি   বিশ্বনাথে ওসির বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্তের অভিযোগ কলেজছাত্রীর   “গ্রাম আদালত গ্রামের মানুষের আদালত”   মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ অনুপ্রেরণা যুগিয়েছিল: এমপি মানিক   চেষ্টা করলেও ইতিহাস বদলানো যায় না: শেখ হাসিনা   খাদিমপাড়ায় অবৈধভাবে পাহাড় কাটার দায়ে একজনকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা   শাহ খুররম ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অধ্যাপক জাকির হোসেন   কুলাউড়া উপজেলা যুবলীগের সম্মেলন সম্পন্ন: নতুন নেতৃত্বের অপেক্ষায় নেতাকর্মীরা   সিলেট মেরিট কেয়ার একাডেমির ম্যানেজিং কমিটি গঠন   সিলেট সদর উপজেলা জমিয়তের কাউন্সিল সম্পন্ন   আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হলেই সামাজিক শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব: আসাদ উদ্দিন আহমদ   এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে অগ্নিসংযোগে ছাত্রলীগ: গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি   মৌলভীবাজারে কলেজছাত্রীর ওপর হামলা, আটক ১   বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ বিশ্ব ঐতিহাসিক স্মারক   ১১ বছর পর আজ কুলাউড়া উপজেলা যুবলীগের সম্মেলন   ইলিয়াস আলীর সন্ধানে বিশ্বনাথে বিএনপি দু’গ্রুপের পৃথক মিছিল-সভা   দক্ষিণ সুরমার বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল সিংহ বর্মণকে রাস্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

‘ভাই জানডা ভিক্ষা চাই, আর বিদেশ করুম না’

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-০৮ ১০:০৪:৫২

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : রোববার, ০৮ নভেম্বর ২০১৫ ॥ ভাই আমারে বাঁচান,ভাই আমার জানডা ভিক্ষা চাই, আমি আর এ বিদেশ করুম না...।

এমনি ভাবে আকুতি জানিয়ে কেঁদে কেঁদে বলছিলেন রুমা আক্তার। চার মাস আগে সৌদিতে পাড়ি দেন দালালের মাধ্যমে। বাবুল নামে এক দালাল তাকে অফিসের কাজ বলে ভিসা দেয় এবং বেশ কয়েকবার হাতিয়ে নেয় বড় অংকের টাকা। এখন তিনি কাজ করেন এক নিষ্ঠুর লোকের বাসাবাড়িতে। ঠিকমতো খেতে পান না, মারধর করে।

রুমা আক্তারে এ করুণ কাহিনী সৌদি আরবের রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাসের (শ্রম) কাউন্সিলর সারওয়ার আলমকে জানালে তিনি রুমা আক্তারের মোবাইল নম্বর নেন, তার সঙ্গে কথা বলেন এবং রুমা আক্তার কোথায় আছেন সেটি খুব দ্রুত বের করার আশ্বাস দেন।

গত ৪ নভেম্বর দেশে একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালের সৌদি আরব করেসপন্ডেন্টকে ফোন করেন রুমা। জানান তার বিদেশবাসের করুণ কাহিনী। সেই কথপোকথনটিই তুলে ধরা হলো :

আমি নিহন বলছিলাম, আপনার কী সমস্যা বলেন?
ভাইরে আমি সৌদি আরবে খুব বিপদে, আছি আমাকে একটু দেশে পাঠানো যায় না?

আপনি আছেন কোথায়
আমি আছি রিয়াদে

রিয়াদে কোথায়?
কোথায় বলতে পারি না। আমাদের যে মেডিকেল করায়, আকামা করে সেই অফিসের পাশেই আমার বাসা।

আমার নাম্বার দিছে কে আপনাকে?
দেশ থেকে একজনে মেসেজ করে দিছে।

ঠিক আছে আপনার কোম্পানি কি, আপনি কত বছর আছেন এখানে?
চার মাস হয় এখানে আছি।

চার মাস আসছেন নতুন?
হ্যাঁ।

আপনার সমস্যা কী?
মেইন সমস্যা হলো, যে দালালে আমাকে পাঠাইছে সে আমার থেকে প্রায় ৭০/৮০ হাজার টাকা নিছে। সে বলছে আমাকে অফিসের ভিসা দিতাছি। বাসার কাম এইডা জানি না। আইসা দেখি বাসার কাম। আমি অফিসে ফেরত গেছি বলছি আমার সমস্যা আমি দেশে যাবো। আমি খাইতে-লইতে পারি না। অফিসে কমপ্লিন করছি দেইখা আমাকে বাসায় নিয়ে অনেক মারধর করছে। ১ মাস খাইতে পারি না অনেক শুকাইয়া গেছি। মারধর করে গালাগালি করে। ডিউটি ৯ ঘণ্টা আমাকে ১৬/১৭ ঘণ্টা ডিউটি করায়। কাজের লোক লাগে ২ জন। ২ জনের কাম ১ জনের দিয়া করায়। খাইতে গেলে খেচর খেচর করে। মাছ গোশ খাইতে দেয় না। খাওয়ার থেকে উঠাইয়া নিয়া কাম করায়। খাওয়ার সুযোগ পাই না।

খালি আলু আর দুইডা চাল দেয়। গতকালকে সারাদিন কিছু খাই নাই। আজকেও কিছু খাই নাই। এর মধ্যে চুরি করে আপনাকে ফোন দিছি। এখন ঘরে কেউ নাই।

এখান থেকে বারবার বলা হয়েছে আপনারা ভেবেচিন্তে আসেন। আপনারা এগুলো দেখে-শুনে আসবেন না! আপনার নাম বলেন?
রুমা আক্তার, ভাই আমার জীবনটা একটু ভিক্ষা চাই। একটু উদ্ধার করে দেশে পাঠান

আপনার বাড়ি কোথায়?
বরিশাল। ভাই আমি ১/২ মাস হইছে আমার গত মাসের বেতনের টাকা দিয়া মোবাইলের কাডের লইগা তাও যাইতে দেয় না। আমারে কিছু দেয় না। তেল পানি দেয় না।

আমি দেখতে আসছি। আমরা আজকে আসবো
শুনেন ভাইয়া আপনি ২ মিনিট আমার কথা শুনেন। ওদের যন্ত্রণায় আমার মাথায় বাড়ি মারছি সেই থেকে মাথায় একটু চিরুনিও দিতে পারি না। চুল কাইটা ফাইলছি। মাথা ন্যাড়া করে ফেলছি। অমানসিক অত্যাচার। ধোয়া বাসন বারবার ধোয়ায়। একটু বসা দেখতে পারে না। কাপড়-চাপড় আউলাইয়া আবার ঠিক করায়, খুব কষ্ট দেয়। খালি কাম করায়। আমি যে অফিসে বিচার দেবো তাও পারি না। নাম্বার নাই যদি জানতে পারে তাহলে আমারে পিটাইয়া মাইরা ফেলাইবো। আমি অসুস্থ মইরা যাই আমারে লাথি দিয়া উঠাইয়া আবার কাম করায়।

আপনি এখন যেখানে আছেন ওখানে কোনো বাংলাদেশি মেয়ে আছে?
জানি না।

আচ্ছা ঠিক আছে আমরা যেভাবে হোক দেখতাছি।
শোনেন ভাইয়া

জি বলেন?
আপনি আমারে যে বাড়ির নাম্বার যে ১৮ নাম্বার বাড়ি। মেডিকেল থেকে একটু সামনে আগাইলে পূর্ব দিকে মেইন গেটের লগে। বাড়ির সামনে মার্কেট আছে। আপনারা ইচ্ছা করলে আমারে খুঁজে বের করতে পারেন। আমি কই আছি। ভাই আমারে বাঁচান, আমার জীবনটা ভিক্ষা চাই। এর বিনিময় যদি যা কিছু কন আমি তা করব।

আমরা দেখি কি করা যায় আপনি আপনার মোবাইল খোলা রাইখেন
আমার নাম্বার খোলা থাকে। আপনি এই টাইমে ফোন দিলে আমার সঙ্গে কথা হবে। বিকেলের টাইমে ভুলেও ফোন দিবেন না।
ওরা সবাই জাগনা থাকে। ওই বাড়ির লোক বাসায় থাকে। সকালে বাসার মহিলা ঘুমায় তাই এই সময় ফোন দিয়েন।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/টিআই-আর

সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত