সর্বশেষ

  গ্রিক দেবীর ভাস্কর্য সরানোর কাজ চলছে   প্রধানমন্ত্রী ও প্রশাসনের কাছে জগন্নাথপুরে স্কুলছাত্র শুকুর হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি   ‘যুদ্ধ বিধ্বস্ত পৃথিবীতে নজরুল সাম্যের কথা বলে গেছেন’   সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের নতুন সদস্যদের অভিষেক আজ   মাহে রমজান উপলক্ষে জগন্নাথপুরে প্রবাসীদের উদ্যোগে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ   জগন্নাথপুরে অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত গ্রেফতার   বিয়ানীবাজারে সড়ক সংস্কারের দাবিতে গ্রামবাসীর অবরোধ   শাহী ঈদগাহ থেকে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার   রামপুরে বাগান কর্তৃপক্ষের সাথে শ্রমিকদের বিরোধ নিষ্পত্তি করলেন উপজেলা চেয়ারম্যান   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে বিভিন্ন সংস্থার উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ ও ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প   জৈন্তাপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্রকে সিলেটে হস্তান্তর না করতে প্রতিমন্ত্রীকে স্মারকলিপি   নবীগঞ্জের ২নং ইউনিয়নে শেখ হাসিনা’র শতভাগ বিদ্যুৎ উপহার দিলেন কেয়া চৌধুরী   আজ ওসমানীনগরের বুরুঙ্গা গণহত্যা দিবস   শেখ হাসিনার নেতৃত্বে হবিগঞ্জের সর্বত্র ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে : এমপি আবু জাহির   সুনামগঞ্জে হামের প্রাদুর্ভাব : আতঙ্কে অভিভাবকরা   অনিল কিষণ সিংহের ৮০তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন শুক্রবার   হবিগঞ্জে ক্ষুদে নৃত্য শিল্পীর সংবর্ধনা   সাংবাদিক মামুন চৌধুরী’র পিতা ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত   কৃষকদের ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন   সনামগঞ্জ জেলা কৃষক লীগের আহবায়ক কমিটি গঠন

অগ্ন্যাশয় ক্যানসার প্রতিরোধে করলা

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-২১ ১৪:২০:৩৪

স্বাস্থ্য ডেস্ক : শনিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৫ ॥ ভারতীয় উপমহাদেশে করলা অত্যন্ত পরিচিত একটি সবজি। এশিয়‍া, পূর্ব আফ্রিকা, দক্ষিণ আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে এ সবজিটি জন্মে বেশি। তিতা স্বাদের করলার নানা ভেষজ ও ওষুধি গুণাগুণ রয়েছে।

বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা যায়- করলা ডায়াবেটিস ও কয়েক প্রকার ক্যানসারের চিকিৎসায় কার্যকরী। করলা ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। এন্টিভাইরাল এ সবজিটি ফ্যাট কমাতেও কার্যকরী ভূমিকা রাখে।

ধারণা অনুযায়ী, ফল ও সবজির মধ্যে করলা সবচেয়ে তিতা। এটি পেটে ব্যথা, জ্বর, চর্মরোগ ও পোড়া ক্ষত সারিয়ে তুলতে প্রাকৃতিক নিরাময়ক হিসেবে বহুকাল ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

অনেকেই জানেন- অগ্ন্যাশয়ের ক্যানসার অন্যান্য ক্যানসারের তুলনায় অনেক দ্রুত বাড়ে। কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায়, অগ্ন্যাশয়ে ক্যান্সারের ওপর করলার ওষুধি প্রভাব পরীক্ষা করে দেখা যায়- করলার রস ক্যানসার সেল তৈরি হওয়া বন্ধ করে ও নিষ্ক্রিয় করে দেয়।

কোনো প্রকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই এটি বেড়ে ওঠা টিউমারকে ৬০ শতাংশ হারে কমায়।

সহজলভ্য ও উপকারী হওয়ায় করলা প্রায়শই ডায়েট মেন্যুতে থাকে। তবে সুস্থ থাকতে ঠিক কী পরিমাণ করলা খাবেন তা জেনে নেওয়া ভালো। একজন ব্যক্তির প্রতিদিন দুই আউন্স বা ৫৭ গ্রামের বেশি খাওয়া উচিত নয়। বেশি খেলে পেটে ব্যথা বা ডায়রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, গর্ভবতী নারীদের করলা খাওয়া ঠিক নয়। এটি গর্ভপাতের কারণ হতে পারে। (তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট।)

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/এসবি



এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত