সর্বশেষ

  উত্তরপূর্ব’র ঈদ শুভেচ্ছা   ইলিয়াস পত্নী তাহসিনা রুশদী লুনা’র ঈদ শুভেচ্ছা   ঈদের নামাজের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন মুসল্লিরা: সিলেটে ঈদগাহে জামাত আদায় নিয়ে শঙ্কা   হতবাক অপু   সিলেটে ঈদ জামাত কখন কোথায়   ইসকন সিলেটের রথযাত্রা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অন্যন্য ঐতিহ্য : মেয়র আরিফ   চাঁদ দেখা গেছে : কাল প্রতীক্ষার ঈদ উৎসব   ইংল্যান্ডের নিউক্যাসেলে ঈদ উৎসবের ভিড়ে গাড়ি : আহত ৬   ইতিহাস-ঐতিহ্য ধরে রাখতে প্রকাশনার বিকল্প নেই : শফিকুর রহমান চৌধুরী   নামতে হবে ব্যাটিংয়ে, মগ্ন তিনি বইয়ের পাতায়   তারেক মাসুদকে উৎসর্গ করে পতুর্গালে প্রথম চলচ্চিত্র উৎসব   ওসমানীনগরে মোবাইল ফোনে উপবৃত্তির টাকা উত্তোলনে বিড়ম্বনার শিকার শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা   লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত ফুটবলারকে লন্ডন প্রবাসী ও বন্ধু মহলের সাহায্য প্রদান   বিশ্বনাথে ভিক্ষুকদের মধ্যে শফিকুর রহমান চৌধুরীর অর্থ বিতরণ   জগন্নাথপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মোয়াজ্জিনের মৃত্যু   ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের শুভেচ্ছা   ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নগরবাসীর প্রতি সিসিক মেয়রের শুভেচ্ছা   এসএসসির পর ভর্তি উদ্বেগ   বরমচাল দরিদ্র কল্যাণ সংগঠনের উদ্যোগে দুস্থদের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ   পাকিস্তানে তেলের লরিতে আগুন : নিহত ১৪০

প্রতিদিন ১০০ হাতি হত্যা!

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-১৭ ০১:২৭:২০

ফিচার ডেস্ক : মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৫ ॥ মানুষের অসচেতনতা, অবহেলা আর ব্যক্তিগত স্বার্থ লাভের চিন্তায় আমাদের প্রকৃতি থেকে অনেক প্রাণী বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। আমরা প্রতিদিন হাজার হাজার প্রাণী হত্যা করছি। পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে এমন প্রাণীগুলোর তালিকায় রয়েছে আফ্রিকার হাতিও। বিশালদেহী এই প্রাণীটি যে হারে বিলুপ্ত হচ্ছে তাতে মনে হচ্ছে এক সময় এ প্রাণীটির আর কোনো অস্তিত্বই থাকবে না।

এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বছরে প্রায় ৩৬ হাজার হাতি হত্যা করা হয়। এই হিসেবে প্রতিদিন হত্যা করা হচ্ছে ১শ হাতি। কয়েক দশকে হাতির সংখ্যা ৬৪ ভাগ কমেছে। যে হারে হাতি হত্যা করা হচ্ছে সে হারে হাতি জন্মাচ্ছে না। অর্থাৎ জন্ম মৃত্যুর হার সমান তালে মিলছে না। আর এ কারণে হাতি প্রায় বিলুপ্তির পথে। ২০১৫ সালের মধ্যে আফ্রিকা থেকে হাতি পুরোপুরি বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

প্রকৃতিতে হাতি খুব জটিল, উচ্চবুদ্ধি সম্পন্ন এবং খুবই সামাজিক একটি প্রাণী। তারা স্থলের সবচেয়ে বড় প্রাণী। তাদের ওজন হয় ৫ হাজার থেকে ১৪ হাজার পাউন্ডের মত। আর লম্বায় এরা প্রায় ১৩ ফুট পর্যন্ত হয়ে থাকে। নিজেদের কান দিয়ে এরা শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। বিশালদেহী এই প্রাণীরা দলবদ্ধ হয়ে বাস করতেই ভালবাসে। দলের কেউ অসুস্থ হলে সবাই মিলে তার যত্ন নেয়। হাতিরা দাঁতের সাহায্যে যুদ্ধ, খাবার খাওয়া এবং খেলাধুলা করে থাকে।

কেনিয়াতে বর্তমানে হাতির সংখ্যা প্রায় ৩৮ হাজার। বিশ্বজুড়ে হাতির দাঁতের চাহিদা প্রচুর। হাতির দাঁত সংগ্রহের জন্য প্রতিনিয়ত হাতিকে হত্যা করা হচ্ছে। আর এ কারণে কয়েক দশকের মধ্যেই হয়ত আফ্রিকা থেকে হাতির সংখ্যা একেবারেই কমে যাবে। এশিয়া এবং চীনে হাতির দাঁতের জন্য এর খুব চাহিদা। আর একারণে হাতির দাঁত সংগ্রহ করতে গিয়ে কিছু অসাধু ব্যবসায়ি প্রতিনিয়ত হাতিকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছে। এছাড়া কালো বাজারে হাতির দাঁতের দাম খুব চড়া।

প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় অন্যান্য প্রাণীর পাশাপাশি হাতির গুরুত্ব অপরিসীম। এরা বাস্তুসংস্থানে সাহায্য করে। এরা বীজ ছড়িয়ে দিতে এবং প্রকৃতি বৈচিত্র রক্ষায় সাহায্য করে। যুক্তরাষ্ট্রসহ কিছু দেশে বাণিজ্যিকভাবে হাতির দাঁত কেনাবেচার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। চীন এতে সামিল হয়েছে যেন হাতির দাঁত অবৈধভাবে কেনাবেচা করা না হয়। এছাড়া বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংস্থার উদ্যোগে হাতি হত্যার বিরুদ্ধে শিকারীদের উৎসাহিত করছে এবং প্রকৃতিতে হাতির বসবাসের পরিবেশ তৈরির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

আন্তর্জাতিকভাবে ১৯৮৯ সাল থেকে আফ্রিকার হাতির দাঁত কেনাবেচা নিষিদ্ধ। তবুও কিছু অসাধু ব্যবসায়ী এসব নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে হাতির দাঁত সংগ্রহের জন্য নির্বিচারে হাতি হত্যা করছে। এদের ঠেকানো না গেলে আমরা হয়ত এই প্রাণীটিকে আর রক্ষা করতে পারব না।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/এসবি

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত