সর্বশেষ

  ছাতকের চেলা নদী নৌকা বাইচ অনুষ্টিত   মিয়ানমারের রাখাইনে হিন্দু গণকবর : ২৮ মরদেহ উদ্ধারের দাবি সেনাবাহিনীর!   'শিক্ষার ভীত মজবুত করতে সরকার প্রাথমিক শিক্ষার উপর গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে'   শাবিপ্রবিতে কারিকুলাম উন্নয়ন বিষয়ে সেমিনার   বিয়ের প্রলোভন দিয়ে অনাথ কিশোরী ধর্ষণ : ২০ হাজারে মিটমাটের চেষ্টা   রোহিঙ্গাদের নাগরিক অধিকারের দাবীতে ছাত্র মজলিস সিলেট মহানগরীর বিক্ষোভ   'শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের যৌথ প্রচেষ্ঠায় মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা দরকার'   রিয়ালকে জয়ে ফেরালেন নবীন সেবায়োস   কমেছে চালের দাম, কমবে আরও   লন্ডনে আবারো এসিড হামলা, আহত ৬   তথ্য-প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে গেছে : ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল   মহিউদ্দিন শীরু’র ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী ২৫ সেপ্টেম্বর   ধর্ম যার যার, উৎসব সবার : কামরান   ওসমানীনগরে নিয়মিত বসে জুয়ার আসর, প্রশাসন নিরব   জগন্নাথপুরে বজ্রপাতে ২ জনের মৃত্যু   ফেঞ্চুগঞ্জে সড়ক মেরামতের দাবিতে আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা   মৌলভীবাজারে ‘শিক্ষা দিবস’ পালিত   হত্যা মামলার আসামী টিটু ও সুলেমান এখনও অধরা   ফেঞ্চুগঞ্জে পরিবহণ শ্রমিক নেতাদের সাথে প্রশাসনের সভা   রোহিঙ্গা নির্যাতনের প্রতিবাদে ওয়ার্কার্স পার্টির প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

জনশূন্য হবে পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চল!

প্রকাশিত : ২০১৫-১০-৩১ ১৪:২৬:৫৭

ফিচার ডেস্ক : শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৫ ॥ আমাদের এই বাস্তুজগতের নানান অনুষঙ্গ নিয়েই সকল প্রাণের জীবনযাপন। বায়ুমণ্ডলে থাকা হরেক ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র পদার্থ থেকে শুরু করে নানান পদার্থ প্রতিদিন আমাদের জীবনযাপনের ভারসাম্য রক্ষায় সহায়ক ভূমিকা পালন করছে। সেই উপাদানগুলোর মধ্যে পরিবেশগত দিক দিয়ে কার্বন-ডাই অক্সাইডের প্রভাব বেশ উল্লেখযোগ্য। কার্বন-ডাই অক্সাইড একটি গুরুত্বপূর্ণ গ্রিন হাউজ গ্যাস যা ভূপৃষ্ঠের বিকীর্ণ তাপ শোষণ করে ভারসাম্য রক্ষা করে। শিল্প বিপ্লবের পর থেকে কার্বণভিত্তিক জ্বালানি দহনের ফলে বায়ুমণ্ডলে কার্বন-ডাই অক্সাইডের পরিমাণ দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। যে কারণে তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পরিবর্তিত হচ্ছে আমাদের জলবায়ু। ধারনা করা হচ্ছে, তাপমাত্রা বৃদ্ধির এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে আগামী ২১০০ সালের দিকে পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলের অস্তিত্ব হুমকির মুখে পরবে।

নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে পারস্যের উপসাগরীয় অঞ্চলগুলোতে কার্বন-ডাই অক্সাইড নির্গত হওয়ার পরিমাণ দিন দিন বাড়ার কারণে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। কার্বন-ডাই অক্সাইড নির্গত হওয়ার এই ধারা অব্যাহত থাকলে শতাব্দীর শেষের দিকে ওই উপসাগরীয় অঞ্চলের মানুষের জন্য তাপমাত্রা সহ্য করা বেশ কষ্টসাধ্য হয়ে উঠবে। কারণ তখন গরমের পরিমাণ এত বেশি হবে যা মানুষের সহ্য সীমার বাইরে চলে যাবে।

পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে বর্তমান তাপদাহে বৃদ্ধরা ও অসুস্থরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কিন্তু এই তাপদাহের ধারা অব্যাহত থাকলে ভবিষ্যতে সুস্থরাও অসুস্থ হয়ে যাবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, তখন সেই দেশগুলোতে সুস্থ মানুষ খুঁজে পাওয়া বেশ কষ্টসাধ্য হবে। উচ্চ তাপের সঙ্গে আর্দ্রতার সংমিশ্রনে তখন ১৬৫ থেকে ১৭০ ডিগ্রি পর্যন্ত সেলসিয়াস তাপমাত্রা হতে পারে অন্তত টানা ছয় ঘণ্টার জন্য। বেশকিছু নতুন গবেষণা মতে, তখন পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলের মানুষ ওই তাপ সহ্য করতে পারবে না।

ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (এমআইটি) পরিবেশ প্রকৌশলী অধ্যাপক এলফেইথ এলথায়ার বলেন- ‘আপনি যদি একটি ভেজা স্টিমবাথে যান এবং সেখানকার তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসের মত করে দিন তাহলে আপনি তা কেবল কিছুক্ষনের জন্য সহ্য করতে পারবেন। কিন্তু ছয় ঘন্টা বা এরচেয়ে বেশি সময় তা সহ্য করা মোটেও সম্ভব না’।

২০০৩ সালে তাপ ও আর্দ্রতা একইভাবে বেড়ে যাওয়ার কারণে ইউরোপের প্রায় ৭০ হাজার মানুষ মারা গিয়েছিল। এছাড়া আবুদাবি, দুবাই এবং দোহার মত দেশগুলোতে যদি এয়ার কন্ডিশনিং ব্যাবস্থা না থাকতো তাহলে সে দেশগুলো বসবাসের অনুপযোগি হয়ে যেতো। কিন্তু যারা বাইরে কাজ করে অথবা যাদের এয়ার কন্ডিশন নেই তাদের জন্য তাপের তীব্রতা সহ্য করা অনেক কঠিন। তেমনি আর একটি অঞ্চল মক্কা। সেখানেও তাপমাত্রা এত বেশি থাকে যার কারণে প্রতি বছর হজে অনেক হাজি গরমের কারণে মারা যায়। জলবায়ু বিষয়ক গবেষক চেরিস বলেছেন, যদি আমরা আমাদের জলবায়ু পরিবর্তন করতে না পারি তাহলে আমাদের বসবাসের জন্য অন্য জায়গা খুঁজে বের করতে হবে।

ওয়াশিংটনের জনস্বাস্থ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন ড: হাভার্ড ফ্রামকিন বলেছেন- যদি পরিবেষ্টিত তাপমাত্রা অসহনীয় হারে বাড়তে থাকে তাহলে পৃথিবীতে মানুষ মারা যাবে। তার এই মন্তব্যের পর উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলো ভীতির মধ্যে পরে গেছে। যদি ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে কার্বন-ডাই অক্সাইডের এই নির্গমন রোধ করা যায় তাহলে তাপমাত্রা ও আর্দ্রতার এই সমস্যা থেকে উত্তরণ সম্ভব বলে মনে করেন প্রকৌশলী এলথায়ার।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/এসবি

সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত