সর্বশেষ

  ভাস্কর্যটি সুপ্রিম কোর্টের বর্ধিত ভবনের সামনে পুনঃস্থাপন   ব্যক্তি উদ্যোগে কানাইঘাট পৌর সভার ভবানীগঞ্জ বাজার রাস্তার সংস্কারকাজ শুরু   মাধবপুরে একাধিক মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার   বিশ্বনাথে এলাকাবাসীর সাথে প্রশাসনের বৈঠক   জগন্নাথপুরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১৫   রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় দক্ষিণ সুরমা কাঠ ক্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির র‌্যালি   খাঁরপাড়া আরজাদ আলী জামে মসজিদের উদ্বোধন করলেন সিটি মেয়র   নুরুলের দাদীর শয্যাপাশে ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন সিলেটের নেতৃবৃন্দ   ৬ষ্ঠ ঘূর্ণী প্রিমিয়ার ক্রিকেট টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণ   বিশ্বম্ভরপুরে বিএনপির আনন্দ মিছিল   জুড়ীতে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে   ভাস্কর্য সরানোর প্রতিবাদে মৌলভীবাজারে বিক্ষোভ সমাবেশ   বড়লেখায় কাবিটা ও কাবিখা’র আওতায় দরিদ্র ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সোলার প্যানেল বিতরণ   মোগলাবাজারে শাহ জকনের ত্রাণ বিতরণ   অংকন টেলেন্টপুলে জিপিএ-৫ পেয়েছে   মৌলভীবাজারে হলুদে সেজেছে প্রকৃতি, কদমের মৌ মৌ গন্ধ   দিরাইয়ে দুর্গত মানুষের পাশে প্রবাসী শফিকুল   দেশে উন্নয়নের জোয়ার বইছে : দক্ষিণ সুনামগঞ্জে এম.এ মান্নান   ‘বেসামরিক নাগরিকদের চিকিৎসাসেবায় বাংলাদেশ বাস্তবভিত্তিক পদ্ধতি গ্রহণ করছে’   দীর্ঘ ৮ বছর পর মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির নতুন কমিটি: আনন্দ মিছিল

অবশেষে স্থাপিত হলো দৃষ্টিহীন সুরঞ্জনের স্বপ্নের দোকান

প্রকাশিত : ২০১৫-০৯-০২ ২২:২১:০৫

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫ : ॥ সুরঞ্জন সরকার (২৬)। সে দৃষ্টিহীনহলেও তার স্বপ্ন দোকান প্রতিষ্ঠা করা। এ দোকানের আয়ে সে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবে। কিন্তু দোকান দেওয়ার মতো টাকা তার কাছে নেই। কি করবে ভেবে পাচ্ছিল না। খুব কষ্ট করে দুই হাজার টাকা জমা করে। কিন্ত এ টাকায় দোকান ঘর নির্মাণ করা কঠিন হয়ে পড়ে। তার স্বপ্ন যেন বাস্তবে রুপ নিচ্ছে না। তারপরও হাল ছাড়েনি। মনের শক্তি দিয়ে উপায় বের করতে মরিয়া সুরঞ্জন।

এ স্বপ্ন বাস্তবায়নে একদিন সে সিদ্ধান্ত নেয় হবিগঞ্জ-সিলেট জেলার সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরীর কাছে যাবে। এ সিদ্ধান্তে সে দেখা করে তার এ স্বপ্নের কথা খুলে বলে। তিনি তাকে আর্থিক অনুদান দিয়ে দোকান নির্মাণ করার কথা বলেন।বাস্তবেও তিনি তাকে ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেন। এ টাকায় সে দোকান নির্মাণ করে।
 
সরেজমিন পরিদর্শনে গেলে আলাপকালে হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলার শংকরপুর গ্রামের বাসিন্দা রবি সরকারের ছেলে সুরঞ্জন সরকার এসব কথা এ প্রতিবেদকের কাছে প্রকাশ করে। 

বর্তমানে তার দোকান থেকে গ্রামবাসী মুদিমাল ক্রয় করে নিচ্ছে। পুরোদমে চলছে তার দোকান। আশ্চার্য্য সে চোখে না দেখলেও মনের শক্তি দিয়ে মুদিমাল পাল্লায় ওজন করে বিক্রি করছে। পণ্যমূল্য নেয়ার বেলা সে বিশ্বাস করে লোকজনকে। তার বিশ্বাসের মর্যাদা দিতে পণ্য ক্রয় করে লোকেরা হিসাব করে টাকা দিয়ে থাকেন।

দোকান দেয়ায় অবশেষে তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়েছে। নিজ বাড়ির সামনে স্থাপিত দোকানে বসে সে ব্যবসা করে যাচ্ছে।  এতে তার আনন্দের শেষ নেই। এ কথা লিখে শেষ করার নয়। তার আনন্দ উপভোগ করতে ঘটনাস্থলে আসতে হবে। তাতে অনুভব করা যাবে।

দোকানে ডাল ক্রয় করতে আসা সবুজ মিয়া বলেন- সুরঞ্জন সৎভাবে ব্যবসা করছে। তার কাছ থেকে সূলভমূল্যে পণ্য ক্রয় করে নিতে পারছি। আমরাও পণ্য ক্রয় করে নিয়ে তার প্রাপ্য মূল্য পরিশোধ করে দিচ্ছি।

আলাপকালে সুরঞ্জন জানায়, তার পরিবারে ভাই,বোন, মা, স্ত্রী, সন্তান রয়েছে। সে এক সময় ঘালমুড়ি বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেছে। দৃষ্টিহীন হওয়ায় তার পক্ষে ঘুরেফিরে ঝালমুড়ি বিক্রি করা কঠিন ছিল। তাই সে স্বপ্ন দেখেছিল বসে ব্যবসা করার। আর বাস্তবেই তার স্বপ্ন পূরণ হলো।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/প্রতিনিধি/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত