সর্বশেষ

  কানাইঘাটে যথাযোগ্য মর্যাদায় আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালিত   বৃটেন প্রবাসী বাঙালিরা বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় স্মরণ করল ভাষাশহীদদের   উলালমহল পূর্বপাড়া একতা সমিতির বার্ষিক ক্রীড়ার পুরস্কার বিতরণ   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ক্রিকেট টুর্নামেন্টর পুরস্কার বিতরণী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি   বিশ্বনাথে ১০ মামলার আসামী ডাকাত আবুল গ্রেপ্তার   মাতৃভাষা দিবসে বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভা   সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার : আজও চালু হয়নি পাঠাগার ও মুক্তিযুদ্ধের সংগ্রহশালা   এমপি লিটন হত্যা : সুন্দরগঞ্জের সাবেক এমপি কাদের গ্রেপ্তার   শানে রিসালত মহাসম্মেলন সফলের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা কাল   আরডিআরএস বাংলাদেশ শ্রীমঙ্গল ইউনিটের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি   জেদ্দায় যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত   লাখো মোমবাতি জ্বালিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ   বলদী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন   দক্ষিণ এশিয়ান সাহিত্য সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন মাইস্নাম রাজেশ   বাইসাইকেলে বরযাত্রা!   ‘শিশুদের নিজেদের সংস্কৃতির শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে’   সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন   আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে দক্ষিণ সুরমা ছাত্রলীগের সভা   মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে খাদিমনগর যুব কল্যাণ পরিষদের শ্রদ্ধাঞ্জলি

‘এদেশে সানীলিওনের আগমন সুস্থ রুচির জন্য পীড়াদায়ক’

প্রকাশিত : ২০১৫-০৮-২৬ ১৬:৪৩:৪৩

আখতার হোসাইন জাহেদ: বুধবার, ২৭ আগস্ট ২০১৫ ॥ গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন মাধ্যমে একটি পূর্বাভাস পাওয়া যাচ্ছে ভারতের বিখ্যাত পর্ণোস্টার সানীলিওন নাকি আগামী মাসের মাঝামাঝিতে বাংলাদেশে একটি কনসার্টে আসছে। ঢাকার বসুন্ধরা সিটির কনভেনশন হলে আয়োজিত এ কনসার্টে সে নৃত্য পরিবেশন করবে। তার নৃত্য উপভোগ করতে সর্বনিম্ন টিকিটের মূল্যও নাকি নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। খবরটি যখন দেশের সামাজিক নেটওয়ার্ক ও গণমাধ্যমগুলোতে ফলাও হয়েছে তখন থেকেই একটি প্রতিবাদী হৈচৈ শুরু হয়েছে গোটা দেশের সুশিল সমাজে। সবার একি কথা সংখ্যাগরিষ্ট মুসলমানদের এদেশে কোনো নর্তকীকে এসে বেলেল্লাপনা-বেহায়াপনা করতে দেয়া হবে না।

সানীলিওন কে? অনেকে জানেন আবার অনেকের মনে এই কৌতুহলী প্রশ্ন। সনীলিওন হচ্ছে বিশ্বের পরিচিত একজন নায়িকা ও পর্ণোস্টার। সে তার পুরো শরীর প্রদর্শন করে পর্ণোগ্রাফি নির্মাণ করে। অশ্লীলতা বলতে যা বুঝায় তার চূড়ান্ত পর্যায়ের খোঁজ মিলে সানীলিওনের কাছে। সানীলিওন পশ্চিমা বিশ্বের সকল অশ্লীল সংস্কৃতি ধারণ করে তা ছড়িয়ে দিচ্ছে আমাদের এ উপমহাদেশে। কাম ও প্রভৃত্তিপরায়নতায় নারকীয় গহ্বরে নিমজ্জিত পাশ্চাত্যের স্বল্প পোষাক পরিহিতা সানীলিওন অবাধ যৌনতার উন্মত্ত স্রোতে গা ভাসিয়ে দিয়ে পশ্চিমা পর্নোগ্রাফি সংস্কৃতি ধারণ চর্চা ও অনুশীলনে অভ্যস্ত। সে অশ্লীল নৃত্য ও দেহবল্লী প্রদর্শন করে মুক্ত জীবনের নামে পুরুষদের সাথে সাদৃশ্য স্থাপন করতে চায়। যৌন ভাবোদ্দীপক অপতৎপরতা ও নগ্ন বীভৎসতার প্রতীক এই সানীলিওন যদি বাংলাদেশে আসে তা হলে তা হবে আমাদের মতো ইসলামপ্রিয় রক্ষণশীল দেশের জাতীয় আদর্শ, সমাজ-সংস্কৃতি ও ইসলামী মূল্যবোধের সম্পূর্ণ পরিপন্থী। সুস্থ রুচির জন্য পীড়াদায়ক।

এমনিতেই আমাদের দেশ আজ অসামাজিকতার অবয়ারণ্যে পরিণত হচ্ছে। নগ্ন অশ্লীল ছায়াছবি প্রদর্শন, পর্ণো ও রম্য পত্র-পত্রিকার সয়লাব, তরুণ-তরুণীদের অবাধ চলাফেরা। অন্যদিকে মাদক সেবন ইত্যাদি আমাদের সমাজে বিস্তার লাভ করায় একশ্রেণীর উচ্ছৃঙ্খল মানুষের কুপ্রবৃত্তি জেগে ওঠার ফলে ইভটিজিং, নারী ধর্ষণ, খুন, অপহরণ, ক্রমশঃ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সংবাদপত্র খুললেই প্রতিনিয়ত প্রথমেই বড় হরফে চোখে পড়ে কোননা কোন ধর্ষণ, খুন, অপহরণ ও এসিড নিক্ষেপের মতো গা শিওরে ওঠা আরোও অনেক ঘটনা। সম্প্রতি বিবিসির দেয়া তথ্য মতে, ২০১৫ সালের জানুয়ারী থেকে জুলাই পর্যন্ত বাংলাদেশে ২৮০টি শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

পরিস্থিতি এতটা ভয়াবহ হওয়া সত্বেও আমাদের দেশে আজ বিকৃত চরিত্রের সানীলিওনকে এনে যৌন উদ্দীপক অনুষ্ঠান করার আয়োজন চলছে। এটা স্পষ্ট বাংলাদেশকে একটি অসামাজিক অশ্লীল দেশ হিসেবে পরিচিত করার জন্যই এধরণের অনুষ্ঠানগুলোর আয়োজন। যাতে করে সানীলিওনের মতো একজন পর্ণো তারকাকে এনে এদেশের জনমনে, তরুণ-তরুনীদেও মগজে-মননে, যৌনতার বিষ ঢুকিয়ে দেয়া যায়। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত। আর সেখানেই সানীলিওনের চরণভূমি, সেখানকার খবর হচ্ছে, প্রতি ২২ মিনিটে সেখানে একজন নারী ধর্ষিত হয়। আর সেটা তাদের সানীলিওনদের বদৌলতেই হচ্ছে। এখন কথা হচ্ছে আমাদের এদেশকেও কি ভারতের মত একটি ধর্ষণের দেশ বানানোর কোন পায়তারা চলছে। যদি কোন মহলের এরকম কোন ভ্রান্ত চিন্তা থাকে তাহলে তাদের জানা থাকা উচিত এদেশ মুসলমানদের দেশ, এখানকার মাটি অসংখ্য ওলী-আউলিয়াদের পদধুলিতে ধন্য। এ মাটির প্রতিটা কনায় কনায় এখনও ইসলামের গন্ধ পাওয়া যায়। এখানে তোমাদের কোন ষড়যন্ত্রের বাস্তব প্রতিফলন ঘটাতে দেয়া হবে না।

সবশেষে বলতে চাই, সারাবিশ্ব যখন পর্ণোগ্রাফির ক্ষতি থেকে বাঁচতে ব্যস্ত, একে নিন্দা জানাচ্ছে, বিভিন্ন দেশে পর্ণোগ্রাফি নিষিদ্ধের জন্য আইন হচ্ছে, সে সময় বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম মুসলিম দেশ বাংলাদেশে পর্ণোস্টার এনে যৌনতার পরিবেশ সৃষ্টি করা আমাদের সামাজিক মূল্যবোধ বিনষ্টের জন্যে একটি বড় ষড়যন্ত্র। যুব সমাজকে পর্ণো তারকা সানীলিওনদের সাথে পরিচয় করিয়ে যৌনতার দিকে তাদেরকে ভাসিয়ে দিয়ে চরিত্র বিনাষী করতেও এটি একটি দূরভীসন্ধি। আমাদের উচিত, বিশেষ করে সকল মুসলমানদের; যার যার অবস্থান থেকে ঈমানী চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে একি আওয়াজ তোলা এদেশে কোন নর্তকীর প্রবেশাধিকার দেওয়া হবে না। অন্যদিকে জাতির এ নৈতিক অধঃপতন ঠেকাতে আমাদের সরকার ও প্রশাসনের উচিত এরকম অনুষ্ঠান বন্ধ করে পর্ণোগ্রাফি নিষিদ্ধের আইন প্রণয়ন করা। যাতে করে দেশ, সমাজ, জাতি এর কুফল থেকে বাঁচতে পারে।

লেখকঃ আখতার হোসাইন জাহেদ
সংগঠক,কামিল হাদিস (এম.এ)


এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত