সর্বশেষ

  নব্য জেএমবি’র সমন্বয়ক জঙ্গি মুসা সিলেটের আতিয়া মহলে!   আতিয়া মহলের পাশের ভবন থেকে নারী ও শিশুসহ উদ্ধার ৬   শিববাড়িতে আবারও সকাল থেকে গুলি-বিস্ফোরণের শব্দ   মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন   দক্ষিণ সুনামগঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত   বিবিআইএস’র স্বাধীনতা দিবস উদযাপন ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণ   আতঙ্ক-উৎকণ্ঠা আর দিনভর পটাস-পটাস, ধিড়িম-ধাড়িম   রশিদিয়া দাখিল মাদরাসায় স্বাধীনতা দিবস উদযাপন   শাবিতে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন   আবাহনী ক্রীড়া চক্রের সভাপতিকে সংবর্ধনা   পশ্চিম সদর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন   শহরতলীর ‘দি সান মুন মেরিট হোম’র উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন   স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুরা দেশকে নিয়ে এখনো গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত: শফিকুর রহমান চৌধুরী   শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট টিম বাসে হামলায় জড়িত জঙ্গি নিহত   মাধবপুরে ব্যবসায়ীর মৃতদেহ উদ্ধার   স্বাধীনতা দিবসে মহানগর আওয়ামী লীগের পুষ্পস্তবক অর্পণ   আতিয়া মহলে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’: ২ জঙ্গি নিহত, অভিযান চলবে   মাধবপুরে নানা আয়োজনে স্বাধীনতা দিবস পালন   মহান স্বাধীনতা দিবসে কমলগঞ্জে ছাত্রলীগের পুস্পস্তবক অর্পন   মহান স্বাধীনতা দিবসে প্লাটুন টুয়েলভ এর শ্রদ্ধাঞ্জলী

অ্যালপাসো কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন আরো ১২ বাংলাদেশী

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-১৮ ২২:০৮:৩৯

প্রতীকি ছবি

নিউইয়র্ক থেকে এনা : বুধবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৫ ॥ টেক্সাসের অ্যালপাসোর ডিটেনশন সেন্টার থেকে আরো ৯ জন বাংলাদেশী মুক্তি পেয়েছেন। গত সপ্তাহে তাদের মুক্তি দেয়া হয়। গত ১৭ নভেম্বর ১ জন এবং ১৮ নভেম্বর আরো ২ জন বাংলাদেশীকে মুক্তি দেয়া হয়। তাদের প্রয়োজনী কাজপত্রের কাজ ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। টেক্সাসের অ্যালপাসো কারাগারে ৪৮ জন বাংলাদেশী মুক্তির জন্য অনশনে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ওয়াশিংটন বাংলাদেশ দূতাবাসের এক শীর্ষ কর্মকর্তা তাদের অনশন ভঙ্গ করান। শর্ত থাকে তাদের পর্যায়ক্রমে প্যারোলে মুক্তি দেয়া হবে।

ড্রামের কর্মকর্তরা কাজী ফৌজিয়া এনাকে জানান- অনশন শেষে প্রথমেই অক্টোবর মাসে ১৬ জন বাংলাদেশীকে মুক্তি দেয়া হয়। এরপর বেশ কিছুদিন কাউকে মুক্তি দেয়া হয়নি। নভেম্বর মাসে দ্বিতীয় সপ্তাহে প্রথমে ৯ জনকে মুক্তি দেয়া হয়, ১৭ নভেম্বর মুক্তি দেয়া ১ জনকে এবং ১৮ নভেম্বর মুক্তি দেয়া হবে আরো ২ জনকে। সবমিলিয়ে ৪২ জন বাংলাদেশীর মধ্যে ২৮ জন বাংলাদেশীকে মুক্তি দেয়া হলো। এই মুক্তি প্রক্রিয়ায় কাজ করছে ড্রামসহ আরো কয়েকটি মূলধারার মানবাধিকার সংগঠন।

কাজী ফৌজিয়া আরো জানান- যারা মুক্তি পেয়েছেন তাদের প্রায় সকলেই নিউইয়র্ক এসে পৌঁছেছেন। গত সপ্তাহে যারা মুক্তি পেয়েছেন তাদের মধ্যে ৯ জন ইতিমধ্যেই নিউইয়র্ক এসেছেন। এদের টিকেটের টিকেট দিচ্ছেন মুক্তিপ্রাপ্তদের আত্মীয়-স্বজনরা। আর যাদের আত্মীয়-স্বজন পাওয়া যাচ্ছে না তাদের টিকেটের ব্যবস্থা করছেন বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম হাওলাদার ও কাজী ফৌজিয়া। তারা নিজেরা সহযোগিতা করছেন এবং মানুষে কাছ থেকে অর্থ নিচ্ছেন।

মুক্তিপ্রাপ্ত বাংলাদেশীরা হচ্ছেন- দেলোয়ার হোসেন, এমডি আজগর আলী, কামরান আহমেদ, আব্দুল মান্নান, নূরুল আলম, সাব্বির আহমেদ, মোহাম্মদ নাজিম আহমেদ, ধনু মিয়া, আঙ্গসু দেব।

এছাড়াও মাসুদ রহমানকে ক্যালিফোর্নিয়া, আলআমিন হোসাইন, আমিনুল ইসলাম ও আবুল কাশেমকে মায়ামি ডিটেনশন সেন্টারে স্থানান্তির করা হয়েছে।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/এ/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত