সর্বশেষ

  ঈদে রাস্তায় থাকবে বিআরটিসির ৯০০ বাস   দিরাইয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ   টস জিতে ফিল্ডিংয়ে টাইগাররা   সিলেট বিভাগকে বাল্যবিবাহমুক্ত ঘোষণা   দীর্ঘ ১৭ বছর পর এফডিসিতে ফিরছেন শাবানা?   শ্রীমঙ্গলে উৎসবমুখর পরিবেশে চলছে ব্যবসায়ী সমিতির নির্বাচন   বিশ্বনাথে স্বামীর হাতে খুন হলেন স্ত্রী   অভিযোগের পাহাড় শিক্ষার্থীদের : হল থেকে বিতাড়িত শাবির সেই ‘অপরাধ সম্রাট’   কুসিক মেয়র সাক্কুর স্থায়ী জামিন   গোয়াইনঘাটের রুস্তমপুর ইউনিয়নের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা   শিক্ষক শ্যামল কান্তির বিরুদ্ধে আদালতের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা   অর্ধেক বৃত্তে মৌলভীবাজার শহীদ মিনার!   যুক্তরাজ্যে আরও সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কা করছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে   মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য গড়ার খাবার   আজ মাশরাফি চোখ রাখছেন জয়ে   জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৩টি বাড়ি ঘেরাও   সিলেটে বজ্রপাতে শ্যালক-দুলাভাইসহ নিহত ৩   মৌলভীবাজারের মোস্তফাপুর ইউনিয়নের বাজেট ঘোষণা   চরগাঁওয়ে রাস্তা উদ্বোধন করলেন এমপি কেয়া চৌধুরী   রাজনগরে ধর্ষক ও নারী নির্যাতনকারীদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

‘নিরাপদেই’ আছেন প্যারিসে বাংলাদেশিরা

প্রকাশিত : ২০১৫-১১-১৪ ২৩:২৪:৩৭

উত্তরপূর্ব ডেস্ক : শনিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৫ ॥ প্যারিস শহরের কয়েকটি স্থানে বোমা হামলা ও বন্দুকধারীদের গুলিতে প্রায় দেড় শতাধিক নিহত হয়েছেন, আহতের সংখ্যা আরো বেশি। তবে এখনো কোনো বাংলাদেশির হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

প্যারিসে বসবাসরত আব্দুল আজিজ নামে এক প্রবাসী ফেসবুকে বাংলামেইলকে জানান, এখানে বেশিরভাগ বাংলাদেশি রেস্টুরেন্টে কাজ করেন। তাদের গভীর রাত পর্যন্ত কাজ করতে হয়। বোমা হামলার ঘটনায় সবাই আতঙ্কিত হলেও নিরাপদেই আছেন। তবে হামলার কারণে অনেকেই বাসায় ফিরতে পারেননি। কর্মস্থলেই রয়ে গেছেন।

এ হামলার পর ফ্রান্সে বসবাসরত মুসলিমদের হয়রানি করা হতে পারে বলেও আশঙ্কা করেন আব্দুল আজিজ। তিনি জানান, হামলাটি মুসলিম জঙ্গিরাই ঘটিয়েছে বলে সবার ধারণা। তাই এরপর মুসলিমদের চলাফেরায় বেশ কঠিন হবে। নিরাপত্তা জোরদারের কারণে জিজ্ঞাসাবাদ, তল্লাশি করাও হতে পারে।

শুক্রবার রাতে প্যারিসের রেস্টুরেন্ট, বার এবং  কনসার্টসহ কমপক্ষে ছয়টি স্থানে বন্দুক ও বোমা হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত বাটাক্লঁ কনসার্ট হলেই কমপক্ষে ১১২ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ওই কনসার্টে হামলার আগে শতাধিক মানুষকে জিম্মি করেছিল বন্দুকধারীরা। পরে পুলিশি অভিযানে জিম্মি নাটকের অবসান ঘটে। এসময় চার হামলাকারীও নিহত হয়।

অন্য হামলাগুলো হয়েছে স্তাদে দে ফ্রান্স এবং কয়েকটি বার ও রেস্তোরাঁয়। এর মধ্যে স্টেডিয়ামের কাছের ঘটনাটি আত্মঘাতি বোমা হামলা বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তাৎক্ষণিকভাবে কোনো গোষ্ঠী হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে এ হামলার জন্য ইসলামি সন্ত্রাসীদের সন্দেহ করা হচ্ছে। ফরাসি রেডিওতে এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেছেন, বাটাক্লঁ কনসার্টে বন্দুকধারীরা ‘আল্লাহু আকবার’ বলে  হামলা চালিয়েছিল। ওই হামলায় একে রাইফেল ব্যবহার করা হয়েছিল যা সাধারণত জঙ্গিরাই ব্যবহার করে থাকে।

হামলার পর গোটা দেশ জুড়ে সতর্ক অবস্থা জারি করা হয়েছে। মোতায়েন করা হয়েছে হাজার হাজার সেনা পুলিশ। প্যারিসের বাসিন্দাদের ঘরে থাকারও অনুরোধ জানান হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামসহ বিশ্বের বিভিন্ন নেতারা এ হামলার ব্যাপক নিন্দা করেছেন।

উত্তরপূর্ব২৪ডটকম/ডেস্ক/টিআই-আর

এ বিভাগের আরো খবর


সর্বশেষ খবর


সর্বাধিক পঠিত